ঢাকা , রবিবার, ১৪ এপ্রিল ২০২৪ , ১ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

আমাদের দেশে যে এত সুন্দর স্থান রয়েছে, না আসলে বুঝতেই পারতাম না,

তিন দিনের ছুটিতে ,হোটেল-মোটেল, রিসোর্টে আর খালি কোন রুম নেই।

বাংলার জমিন ডেস্ক :
আপলোড সময় : ২৯-০৯-২০২৩ ০৭:০২:২৭ অপরাহ্ন
আপডেট সময় : ২৯-০৯-২০২৩ ০৭:০২:২৭ অপরাহ্ন
তিন দিনের ছুটিতে ,হোটেল-মোটেল, রিসোর্টে আর খালি কোন রুম নেই। ফাইল ছবি :
তিন দিনের ছুটিতে পর্যটকদের পাহাড় এবং সমুদ্রের সম্পর্কে ঢল ঘটেছে। হোটেল-মোটেল, রিসোর্টে আর খালি কোন রুম নেই। অনেকেই পড়েছেন বিপাকে, কেননা তারা বুকিং ছাড়া এসেছেন। এই সময়ে ট্যুরিস্ট পুলিশ খুবই পর্যটকদের সুরক্ষা করছে।

কুয়াকাটা সমুদ্র সৈকতে পর্যটকরা তাদের একটি ঝালমুড়ি শুরু করেছেন। লেম্বুর বন, শুটকি পল্লী, ঝাউবন, গঙ্গামতির চর আর বৌদ্ধ বিহার এখন সবখানে পর্যটকদের জনপ্রিয়তা অর্জন করেছে। কিছু মানুষ সমুদ্রের ঢেউয়ে উৎসবে মেলেছেন। আবার অনেকে আপনার সমুদ্র সৈকতে বসে প্রাকৃতিক সৌন্দর্য উপভোগ করছেন।

সাথে টানা তিন দিনের ছুটি অবসর নিয়ে আসা মাসুদ রানা বলেন, ‘আমি এখানে এসে খুব ভালো লাগছি। তবে এখানে হোটেলের ভাড়া কিছুটা বেশি বলে মনে হচ্ছে।’

কুয়াকাটা ট্যুরিস্ট পুলিশের পরিদর্শক মনিরুল হক ডাবলু বলেন, ‘ট্যুরিস্ট পুলিশ পর্যটকদের নিরাপত্তার জন্য কাজ করছে। যেসব পর্যটকরা রাতে সমুদ্রের ক্ষেত্রে ঘুরাঘুরি করবে, তাদের জন্যও সেখানে নিরাপত্তা নিশ্চিত করছে ট্যুরিস্ট পুলিশ।’

আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর নথি অনুযায়ী ও সড়ক যোগাযোগ স্বাভাবিক হওয়ায় বান্দরবান বিশ্বস্ত হয়েছে। শৈলপ্রপাত, নীলাচল, নীলদিগন্ত সহ পর্যটক স্পটগুলো এখন অত্যাধিক জনপ্রিয়। আবাসিক হোটেল ও রিসোর্টগুলো সবগুলি পর্যটকদের জনপ্রিয়।

খাগড়াছড়িতে আসে পরিবার নানা প্রান্ত ঘুরতে এসেছেন পর্যটক আসাদুজ্জামান। তিনি বলেন, ‘প্রথম বার এসেছি। আমি বান্দরবানের সৌন্দর্য দেখে মুগ্ধ হয়েছি। এখানে আমাদের দেশের যে এত সুন্দর স্থান রয়েছে, এবার এসে না পারলে বুঝতেই পারতাম না। খুব ভালো লাগছে।’

রাঙামাটিতে পর্যটকরা কাপ্তাই হ্রদে নৌ ভ্রমণ, সুবলং ঝর্ণা, পলওয়ে পার্ক, ঝুলন্ত সেতু এবং অন্যান্য পর্যটক ঠিকানাগুলির সুন্দর্য উপভোগ করছেন।

আমাদের দেশে যে এত সুন্দর স্থান রয়েছে, না আসলে বুঝতেই পারতাম না, খুব ভালো লাগছে।’

নিউজটি আপডেট করেছেন : Banglar Jamin

কমেন্ট বক্স

এ জাতীয় আরো খবর

সর্বশেষ সংবাদ