• বৃহস্পতিবার, ১৯ মে ২০২২, ১০:২৪ অপরাহ্ন

কলার খোসার ব্যবহার

  • আপডেট টাইম : বুধবার, ১১ মে, ২০২২
  • ৩০

কলা অত্যন্ত সুস্বাদু, স্বাস্থ্যকর ও ভিটামিনে পূর্ণ একটি ফল। এটি বিশ্বের সবচেয়ে জনপ্রিয় ফল যা সারা বিশ্বেই খাওয়া হয়। এই মিষ্টি ফলটি খাওয়ার পর আমরা সাধারণত এর খোসা ফেলে দিয়ে থাকি। তবে এখন থেকে এটি সংরক্ষণ করে রাখতে পারেন। আপনি জানলে অবাক হবেন সম্প্রতি এক গবেষণায় বেরিয়ে এসেছে নিয়মিত কলার খোসা ব্যবহারে পাওয়া যাচ্ছে চমৎকার সব ফলাফল।

কলা খাওয়ার পর এর খোসা যেখানে-সেখানে ফেললে নানা দুর্ঘটনা ঘটতে পারে। তাই যেখানে-সেখানে কলার খোসা না ফেলে তা সংরক্ষণ করতে পারেন। কেননা, কলা যেমন উপকারী তেমনি কলার খোসার উপকারিতাও কিন্তু কম নয়। কলার খোসাকে আপনি নানা কাজে ব্যবহার করতে পারেন। তবে রাসায়নিকমুক্ত কলা হলে তা আরও ভালো কাজে দেবে।

চলুন জেনে নেই কী কাজে লাগে কলার খোসা

ঝকঝকে সাদা দাঁতের জন্য:
প্রাকৃতিক উপায়ে সাদা ঝকঝকে দাঁতের জন্য কলার খোসা ব্যবহার করতে পারেন। অনেকেই দাঁত থেকে হলদে ভাবটা কিছুতেই ওঠাতে পারেন না। কলার খোসার ভেতরের দিকটা দিয়ে কিছুক্ষণ দাঁত মাজুন। দাঁতে ব্যথা কমাতেও কলার খোসা ভালো কাজ করে। দাঁতে পাকা কলার খোসা প্রতিদিন ঘষে টানা এক সপ্তাহ ব্যবহার করলে তা ভালো কাজে দেবে।

ব্রণ দূর করতে:
মুখের ব্রণ দূর করতে কলার খোসা উপকারি। এর মাধ্যমে একবার ব্রণ সেরে গেলে আর ফিরে আসে না। মুখে ভালো করে ঘষে সারারাত রেখে দিলে ব্রণের সমস্যা কাটবে।

মুখের দাগ দূর করতে:
কলার খোসা ব্যবহার করে সহজেই মুখের দাগ দূর করা যায়। মধুর সঙ্গে কলার খোসা মিশিয়ে মুখে ভালো করে ঘষলে এই দাগ দূর হয়।

অতিবেগুনি রশ্মি থেকে সুরক্ষা দেয়:
চোখে ছানি পড়ার হাত থেকে রক্ষা করতে পারে কলার খোসা। চুলকানি ও চোখের অবসাদ দূর করতে চোখের ওপর কলার খোসা মেখে নিতে পারেন। কলার খোসায় অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট থাকে৷ যা অতিবেগুনি রশ্মির ছোবল থেকে চোখকে বাঁচায়৷‌

দাদের ওষুধ:
কলার খোসা দাদের ওষুধ হিসেবেও কাজ করে। চুলকালে সেই অংশে কলার খোসা ঘষে দিলে চুলকানি বন্ধ হবে এবং দ্রুত দাদ সেরে যাবে।

মসৃণ ত্বকের জন্য:
মুখমণ্ডল যদি শুষ্ক আর খসখসে হয়, কলার খোসার ভেতরের অংশ মুখে লাগিয়ে রাখুন কিছুক্ষণ। তারপর ধুয়ে ফেলুন। দেখবেন ত্বক মসৃণ ও মোলায়েম হয়ে গেছে।

খোসপাঁচড়া দূর করে:
ত্বকে কোথাও পাঁচড়া-জাতীয় কিছু হলে সেই জায়গায় কলার খোসা মেখে রাখুন, অথবা কলার খোসা পানির মধ্যে সেদ্ধ করে সেই পানি দিয়ে সংক্রমিত জায়গা কয়েক দিন ধুয়ে ফেলুন। উপকার পাবেন।

পোকা-মাকড় কামড়ালে:
যদি কোনো পোকা-মাকড় হঠাৎ কামড় দিয়ে বসে এবং চুলকাতে থাকে এর জন্য কলার খোসা কাজে লাগাতে পারেন। দ্রুত ব্যথা ও চুলকানি সেরে যাবে।

সূত্র- সময় টিভি
ডেস্ক রিপোর্ট/ জান্নাত

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..