• বুধবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১১:৪৩ অপরাহ্ন

ক্ষতি পুষিয়ে নিতে ত্রাণ হিসেবে আলু দেওয়ার উদ্যোগ

  • আপডেট টাইম : সোমবার, ২৩ আগস্ট, ২০২১
  • ৬৮

বাংলারজমিন২৪.কম ডেস্কঃ

দেশে এখন পর্যন্ত বিভিন্ন দুর্যোগ ও সহায়তায় কৃষিপণ্য হিসেবে দেওয়া হয় চাল, গম, আটা ও অন্যান্য সামগ্রী। এবার এসব কার্যক্রমে নতুন পণ্য হিসেবে আলু যোগ করার নির্দেশনা দিয়েছে কৃষি মন্ত্রণালয়।

গত ২১ আগস্ট বিষয়টি নিশ্চিত করতে সরকারের দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়, এনজিওবিষয়ক ব্যুরো এবং শরণার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনারকে চিঠি দেওয়া হয়েছে।

গত ১৯ আগস্ট, ২০২১ কৃষি মন্ত্রণালয়ের উপসচিব নাছিমা খানম স্বাক্ষরিত ওই চিঠিতে বলা হয়েছে— দেশে আলু উৎপাদন উত্তরোত্তর বাড়ছে। বর্তমানে আলুর পর্যাপ্ত মজুত আছে। উৎপাদিত আলুর যথাযথ ও বহুমুখী ব্যবহার নিশ্চিত প্রয়োজন। এ জন্য বিভিন্ন প্রাকৃতিক দুর্যোগ পরিস্থিতি মোকাবিলায় এমনকি হতদরিদ্রের মাঝে চাল, গম, আটা এবং অন্যান্য ত্রাণসামগ্রী বিতরণের পাশাপাশি আলুও বিতরণ করা যেতে পারে।
‘এতে একদিকে যেমন আলুর বহুমুখী ব্যবহার বাড়বে অন্যদিকে ভোক্তাপর্যায়ে আলুর চাহিদা পূরণ হবে এবং কৃষকের উৎপাদিত পণ্যের বাজারজাত নিশ্চিত হবে।’
কৃষিমন্ত্রী ড. মো. আবদুর রাজ্জাক এমপির সঙ্গে এফবিসিসিআই ও বাংলাদেশ কোল্ডস্টোরেজ অ্যাসোসিয়েশনের প্রতিনিধি দল আজ মঙ্গলবার বিকালে সচিবালয়ে সাক্ষাৎ করেন।

এ সময় কোল্ডস্টোরেজ অ্যাসোসিয়েশনের প্রতিনিধিদল কোল্ডস্টোরেজে মজুতকৃত ও উদ্বৃত্ত আলু বিক্রিতে কৃষিমন্ত্রীর সহযোগিতা কামনা করেন।

তারা বলেন, চলতি ২০২১ মৌসুমে ১ কোটি ১০ লাখ মেট্রিক টন আলু উৎপাদিত হয়েছে। বিপরীতে দেশে আলুর চাহিদা ৮৫-৯০ লাখ মেট্রিক টন। এর ফলে প্রায় ২০ লাখ টন আলু উদ্বৃত্ত রয়েছে। এ বছর প্রায় ৪০০ হিমাগারে ৫৫ লাখ টন খাবার আলু, বীজ আলু ও রপ্তানিযোগ্য আলু সংরক্ষিত আছে। বর্তমানে আলুর বাজারদর কম। সংরক্ষিত আলু বাজারজাত না করতে পারলে বিপুল পরিমাণ আলু অবিক্রীত থাকার সম্ভাবনা দেখা দিবে।
গত বছরের মতো এ বছরও ত্রাণসহ বিভিন্ন সরকারি কাজে আলু বিতরণের দাবি জানিয়ে প্রতিনিধিদল বলেন, সরকারিভাবে ক্রয় করে ত্রাণ, কাবিখা, ভিজিএফ, ওএমএস, রোহিঙ্গাদের মধ্যে এবং আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর রেশনে আলু বিতরণ করলে উদ্বৃত্ত আলুর সুষ্ঠু ব্যবহার সম্ভব।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..