• রবিবার, ০১ অগাস্ট ২০২১, ০৫:০৮ অপরাহ্ন

৬০ হাজার গরু অনলাইনে বিক্রি

  • আপডেট টাইম : সোমবার, ১২ জুলাই, ২০২১
  • ৪২

বাংলারজমিন২৪.কম ডেস্কঃ
করোনা মহামারিতে কোরবানির পশু কেনার ক্ষেত্রে হাটের বিকল্প হিসেবে অনেকে বেছে নিচ্ছেন অনলাইন প্লাটফর্ম ও খামার। এক্ষেত্রে পশুর রং, লাইভ ওয়েট বিবেচনায় নিয়ে নির্ধারণ করা হচ্ছে দাম। তবে প্রতারণা থেকে সর্তক হয়ে বেচাকেনা করার পরামর্শ দিয়েছে প্রাণিসম্পদ বিভাগ।
লোকমান হোসাইন। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ছাড়া দৈন্দিন জীবনে প্রযুক্তি তেমন একটা ব্যবহার করা হয়ে উঠে না তার। মহামারিতে নিজের ও পরিবারের সুরক্ষায় কোরবানিতে দ্বারস্থ হন অনলাইনের।
ফার্মগুলোর ফেসবুক কিংবা ওয়েব সাইটে দাম, রঙ ও ওজনের ট্যাগ দেখে পশু পছন্দ করেন ক্রেতারা। ব্যাংক কার্ড বা মোবাইল ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে পরিশোধের সুযোগ আছে এখানে। দেয়া হয় হোম ডেলিভারি।

গ্রীণ এ্যাগ্রোর মালিক নুরুল ইসলাম বাবু বলেন, করোনা কারণে অনেকে হাটে যাবে না। সেজন্য আমরা অনলাইনে গরু বিক্রি করছি। এবং হোম ডেলিভারী দিচ্ছি
অনলাইন ছাড়াও সরাসরি খামার থেকে বিক্রিও বেশ জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। অনেকে বিভিন্ন যোগাযোগ মাধ্যমে পশুর ছবি দেখে সেটি আবার সরাসরি খামারে এসে পছন্দ করে নেন। এক্ষেত্রে জনসমাগম কম থাকায় এ দিকে ঝুঁকছেন অনেক ক্রেতা।

নাহার এ্যাগ্রোর পরিচালক তানজীব জাওয়াদ রহমান বলেন, অনলাইনে আমাদের ৫০-৫২ শতাংশ গরু অনলাইনে বিক্রি হয়ে গেছে। আমরা বেশ সাড়া পাচ্ছি।
পরিস্থিতির বিবেচনায় সরকারিভাবেও অনলাইন এবং অফলাইন তথা খামারে পশু বিক্রিকে উৎসাহিত করা হচ্ছে বলে জানান জেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা।
চট্টগ্রাম জেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডা. মোহাম্মদ রেয়াজুল হক, ইতোমধ্যে ৬০ হাজার গরু অনলাইনে বিক্রি হয়ে গেছে। আমি পরামর্শ দেবো আপনার পরিচিত ব্যক্তিদের থেকে ক্রয় করুন। একবারে অপরিচিত লোকদের নিকট থেকে ক্রয় করা বিরত থাকুন।
জেলায় স্থায়ী-অস্থায়ী প্রায় ১০ হাজার খামারে প্রতি বছর কোরবানির জন্য প্রস্তুত করা হয় প্রায় সাড়ে ৭ লাখের মতো পশু ।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..