• রবিবার, ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২১, ০৩:০৬ পূর্বাহ্ন

ব্রেকিং নিউজ :
রোহিঙ্গা সমস্যা সমাধানে যুক্তরাষ্ট্রকে নেতৃত্ব দেওয়ার আহ্বান পররাষ্ট্রমন্ত্রীর রাজারহাটে সন্ত্রাসী হামলার প্রতিবাদে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত। ভোলাহাটে চূড়ান্ত মিনি নাইট ক্রিকেট টুর্নামেন্ট অনুষ্ঠিত যশোরে ইয়াবাসহ নারী মাদক ব্যবসায়ী আটক উন্নয়নের ধারাবাহিকতা রক্ষায় নৌকা মার্কায় ভোট দিন: জাহাঙ্গীর কবির নানক শুমারি তথ্য হাকালুকিতে কমেছে অতিথি পাখি হালদা নদীতে অবৈধ বালু উত্তোলনের ১২টি নৌকার ইঞ্জিন ধ্বংস রাজশাহী এ্যাডভোকেটস বার এসোসিয়েশন নির্বাচনে জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ঐক্য প্যানেলের নিরঙ্কুশ বিজয়ে বিএনপি’র অভিনন্দন কুলাউড়ায় ছাত্র ইউনিয়নের সম্মেলন সম্পন্ন ফুলপুরে স্বপ্নযাত্রা ফাউন্ডেশনের পক্ষ থেকে মেধাবী শিক্ষার্থীদের মাঝে শিক্ষা উপকরন বিতরন 

কুলাউড়ায় খাসিয়া-বনকর্মীদের সংঘর্ষে আতঙ্কের সৃষ্টি, থানায় পৃথক মামলা দায়ের ।

  • আপডেট টাইম : মঙ্গলবার, ২৩ ফেব্রুয়ারী, ২০২১

আব্দুল কুদ্দুস, কুলাউড়া (মৌলভীবাজার) প্রতিনিধিঃ

কুলাউড়ার কর্মধা ইউনিয়নে বনবিভাগ ও খাসিয়াদের মধ্যে সৃষ্ট সংঘর্ষের ঘটনায় এলাকায় আতঙ্ক বিরাজ করছে। নোনছড়ায়
সামাজিক বনায়নের নামে একটি পানজুম দখল চেষ্টার ঘটনাকে কেন্দ্র করে খাসিয়া-বনবিভাগ পরস্পরের বিরুদ্ধে কুলাউড়া থানায় মামলা দায়ের করেছে। থানা সূত্রে জানা গেছে, উভয়পক্ষ থানায় মামলা দায়ের করলেও এখন পর্যন্ত কাউকে গ্রেফতার করা যায়নি। সংঘর্ষের পর উভয়পক্ষের ৫ জন উন্নত চিকিৎসার জন্য সিলেট ওসমানি মেডিকেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, শুকনো মৌসুমে খাসিয়াদের পানজুম থেকে পান চুরির ঘটনা বেশী ঘটে থাকে। চুরি রোধ
করতে জুম এলাকায় খাসিয়ারা রাতে পাহারা দেয়। খাসিয়াদের অভিযোগ, শনিবার (২০ ফেব্রুয়ারি) ভোর সাড়ে ৫টায় কর্মধার
নলডরি বনবিট কর্মকর্তার নেতৃত্বে একদল লোক সামাজিক বনায়নের নামে জুম দখল করতে নোনছড়ায় যান। কোন কারণ ছাড়াই নোনছড়া জুমের একটি অংশে বিট কর্মকর্তার উপস্থিতিতে অন্তত দেড়শ’ পান গাছ কেটে সাবাড় করেন নলডরির আনোয়ারুল ইসলাম লিটন ও তার সঙ্গীরা। এসময় জুমে পাহারায় নিয়োজিত থাকা পাহারাদাররা পান গাছ কাটতে বাধা দেয়। সেই বাধা না মেনে বিট কর্মকর্তার সঙ্গে থাকা আনোয়ারুল ইসলাম লিটনের নেতৃত্বে লোকজন পাহারাদারদের সাথে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। সংঘর্ষে উভয়পক্ষের অন্তত ১৫ জন আহত হন। তাদের দ্রুত কুলাউড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। এরমধ্যে খাসিয়া সম্প্রদায়ের ৪ জনের অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় তাদের সিলেট ওসমানি মেডিকেল হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়। অপরদিকে বনবিভাগ দাবী করছে, খাসিয়াদের হামলায় তাদের ১১ জন লোক আহত হয়। গুরুতর আহত ১ জনকে উন্নত চিকিৎসার জন্য সিলেট ওসমানি হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়।

এই ঘটনায় নোনছড়া পুঞ্জির হেডম্যান ববরিন তংপেয়ার বাদী হয়ে ওইদিন দিবাগত রাতে ১১ জনের নাম উল্লেখ করে কুলাউড়া থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। অপরদিকে নলডরি বিট কর্মকর্তা জহিরুল ইসলাম বাদী হয়ে ববরিন খাসিয়াকে প্রধান আসামী করে এবং আরো ১০ জনের নাম উল্লেখ করে থানায় মামলা দায়ের করেন। নোনছড়া পুঞ্জির হেডম্যান ববরিন তংপেয়ার জানান, কর্মধার নোনছড়ায় ভূমির বিরোধ নিয়ে খাসিয়ারা বনবিভাগের বিরুদ্ধে আদালতে একটি স্বত্ত্ব মামলা (নং ৬২/১৯৮২) দায়ের করেন। মামলার বিচার কার্য শেষে বিজ্ঞ আদালত তাদের পক্ষে রায় দেন। বনবিভাগ পরবর্তীতে উক্ত রায়ের বিরুদ্ধে আপীল (স্বত্ত্ব আপীল মামলা নং ৮২/০৫) করলে সেই আপীল মামলার রায়ও খাসিয়াদের পক্ষে আসে। ববরিন খাসিয়া আরো জানান, পুঞ্জির হেডম্যান হিসেবে তাকে পুঞ্জির ভাল-মন্দ দেখভাল করতে হয়। পুঞ্জির লোকজন তাদের দখলীয় জায়গায়
পানচাষ করতে গিয়ে বিভিন্ন সময় বনবিভাগের বাধার সম্মুখীন হন। শনিবার (২০ ফেব্রুয়ারি) ভোর সাড়ে ৫টায় বনবিভাগের
লোকজন পানজুম দখলের উদ্দেশ্যে জুমে প্রবেশ করে তাদের ফলায়া দেড়শ’ পুরাতন পান গাছ কেটে ফেলে। বনবিভাগের লোকজন পাহারাদারদের বাধার মুখে পড়ায় বেশী পান গাছ কাটতে পারেননি।

তিনি জানান, পানজুম পাহারার জন্য জুমের ভিতর ছোট ছোট ঘর তৈরী করে রাখা হয়েছে। এর আগে নোনছড়ার ওই জুমের পাশে নির্মিত ববরিন খাসিয়ার একটি পাহারার ঘর সাবেক বিট কর্মকর্তা অর্জুন কান্তি দস্তিদার উচ্ছেদ করেন।

এদিকে খোঁজ নিয়ে আরো জানা গেছে, ১৬ ফেব্রুয়ারি বনবিভাগের লোকজন নোনছড়া পুঞ্জির জায়গা দখল করতে গেলে
খাসিয়ারা তাতে বাধা দেয়। ঘটনাটি খাসিয়ারা তাৎক্ষণিক উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে
মুঠোফোনে বিষয়টি অবহিত করেন। ইউএনও সৃষ্ট জটিলতার অবসান ঘটাতে খাসিয়া এবং বনবিভাগের লোকদের নিয়ে রবিবার
(২১ ফেব্রুয়ারি) একটি বৈঠকের দিন ধার্য্য করেন। কিন্তু ২০ ফেব্রুয়ারি বনবিভাগের লোকজন পরিকল্পিতভাবে সংঘর্ষের ঘটনায়
জড়িয়ে পড়ে। এই ঘটনার পর খাসিয়ারা পুঞ্জি থেকে ভয়ে বাহিরে যেতে এবং তাদের পানজুম দেখভাল করতে পারছেনা। বিশেষ
প্রয়োজনে তারা বাহিরে গেলে তাদেরকে রাস্তায় আটক করে নানা ভয়-ভীতি দেখাচ্ছে বিট কর্মকর্তার সাথে সম্পৃক্ত থাকা বস্তির
লোকজন। এ ঘটনায় খাসিয়ারা নিরাপত্তাহীনতায় ভূগছেন।

নলডরি বিট কর্মকর্তা জহিরুল ইসলাম জানান, ওই জায়গাটা বনবিভাগের। আমরা ওইদিন রাতে সেখানে অবস্থানও করেছিলাম। ভোর থেকেই আমরা নার্সারীর কাজে ব্যস্ত ছিলাম। হঠাৎ খাসিয়ারা আমাদের উপর অতর্কিত হামলা চালায়। আহতদের মধ্যে ১ জনের অবস্থা গুরুতর। আর ২১ ফেব্রুয়ারি ইউএনও সাহেবের ডাকা বৈঠকের বিষয়টি আমার জানা ছিলনা। আমাকে ইউএনও সাহেব বিষয়টি জানাননি।

কুলাউড়া থানার ওসি বিনয় ভূষণ রায় জানান, সংঘর্ষের ঘটনায় উভয়পক্ষ থানায় মামলা দায়ের করেছে। আসামীরা আত্মগোপনে
রয়েছে তবে পুলিশ তাদের গ্রেফতারের চেষ্টা অব্যাহত রেখেছে।

 

Facebook Comments

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..