• বৃহস্পতিবার, ২৪ ডিসেম্বর ২০২০, ০১:২৪ অপরাহ্ন

ব্রেকিং নিউজ :
নীলফামারীতে নারীর রাজনৈতিক ক্ষমতায়ন বিষয়ক সংলাপ অনুষ্ঠিত। সুন্দরগঞ্জে যৌতুক দাবীতে স্ত্রীকে নির্যাতন কমলগঞ্জের শমশেরনগর বাজারে রাস্তা দখল করে  দোকান ও পসরা আজ ২৪শে ডিসেম্বর ২০২০ইং, আজকের রাশিফল। ঢাকার বাইরে হচ্ছে ৪টি আন্তঃজেলা বাস টার্মিনাল নেত্রকোনা জেলার মদনে হত্যার জেরে বাড়িঘর ভাঙচুর গোবিন্দগঞ্জে বস্তাবন্দি মাছ ব্যবসায়ীর মৃত্যু নেত্রকোনায় ২০বছরের জন্য ৫শত শিশুর সেবার দায়িত্বে নিয়োজিত কম্পেশন ইন্টারন্যাশনাল নেত্রকোনায় কিশোরী ক্লাবের উদ্যোগে নেত্রকোণায় সাংস্কৃতিক ও ক্রীড়া কর্মকাণ্ড অনুষ্ঠিত ভোলাহাটে সাদা মনের মানুষ জিয়াউল হকের শীতবস্ত্র বিতরণ

বরমচাল হযরত খন্দকার (রঃ) দাখিল মাদরাসায় শিক্ষক নিয়োগে বাণিজ্যের অভিযোগ পাল্টাপাল্টি নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ

  • আপডেট টাইম : বৃহস্পতিবার, ২৪ ডিসেম্বর, ২০২০

আব্দুল কুদ্দুস, মৌলভীবাজার প্রতিনিধিঃ

মৌলভীবাজারের কুলাউড়ার বরমচাল হযরত খন্দকার (রঃ) দাখিল মাদরাসায় সুপারসহ অন্যান্য পদে নিয়োগ নিয়ে বাণিজ্য
চলছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। ম্যানেজিং কমিটির সভায় সিদ্ধান্ত অনুযায়ী বিজ্ঞপ্তিটি প্রকাশের মেয়াদ পূর্ণ হওয়ার ৩দিন আগে সভাপতির আহবানে পুনরায়  নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ নিয়ে এলাকায় মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে। একদিকে ম্যানেজিং কমিটির সিদ্ধান্তে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি অন্যদিকে সভাপতির একক সিদ্ধান্তে পুনরায় নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করায় কেউ
কেউ এখানে নিয়োগ বাণিজ্য চলছে বলেও অভিমত ব্যক্ত করেছেন।

মাদরাসা সূত্রে জানা যায়, বরমচাল হযরত খন্দকার (রঃ) দাখিল মাদরাসার শুন্যপদে সুপার ১ জন, সহকারী গ্রন্থাগারিক ১
জন, নিরাপত্তাকর্মী ১ জন, আয়া পদে ১ জন নিতে ম্যানেজিং কমিটির সভা গত ১ ডিসেম্বর সকাল ১১টায় অফিসকক্ষে আহবান করা হয়। সভায় ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি মো. আনার উদ্দিন, ভারপ্রাপ্ত সুপার মো. মাতাবুর রহমানসহ কমিটির অন্যান্য ১১ জন সদস্য উপস্থিত ছিলেন। সভায় শুন্যপদে নিয়োগের প্রস্তাব উত্তাপনের পর সিদ্ধান্ত আকারে গৃহিত এবং অনুমোদন দেওয়া হয়। গৃহীত সিদ্ধান্ত অনুযায়ী ৭ ডিসেম্বর একটি জাতীয় দৈনিক ও একটি স্থানীয় দৈনিক পত্রিকায় উল্লেখিত শুন্যপদগুলোয়
আবেদন চেয়ে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয়। বিজ্ঞপ্তি প্রকাশের পরবর্তী ১৫ দিনের মধ্যে সভাপতি বরাবরে অফিস
চলাকালীন হাতে হাতে অথবা ডাকযোগে যোগ্যতাসম্পন্ন প্রার্থীদের নিকট থেকে আবেদন আহবান করা হয়।

জানা যায়, ১৫ ডিসেম্বর মাদরাসায় যান ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি মো. আনার উদ্দিন ও শিক্ষানুরাগী সদস্য আব্দুল মোহিত সবুজ। তারা দুজনেই মাদরাসায় উপস্থিত হয়ে ভারপ্রাপ্ত সুপারের কাছে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ হওয়ার পত্রিকা তলব করেন। পত্রিকা হাতে নিয়ে সভাপতি আনার উদ্দিন প্রকাশিত বিজ্ঞপ্তিতে ‘অফিস চলাকালীন’ শব্দ এবং সুপারের মোবাইল ফোন নাম্বার দেখে ক্ষোভ প্রকাশ করেন এবং কেন উল্লেখ করা হয়েছে তা সুপারের কাছে জানতে চান। এই সময় ভারপ্রাপ্ত সুপার বলেন- করোনাকালীন সময় প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায় আবেদনকারীদের স্বার্থে ডাকযোগে, অফিস চলাকালীন সময় এবং প্রতিষ্ঠানের
সম্পাদক হিসেবে প্রকাশিত নিয়োগ বিজ্ঞপ্তিতে তার মোবাইল নাম্বার উল্লেখ করা হয়। সুপার আরো বলেন- মাদরাসার প্যাডে লিখিত ওই বিজ্ঞপ্তিতে তার স্বাক্ষরের পাশাপাশি সভাপতির স্বাক্ষরও ছিল।

মাদরাসা সূত্র আরো জানায়, মাদরাসার ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি মো. আনার উদ্দিন ও শিক্ষানুরাগী সদস্য আব্দুল মোহিত সবুজ ৭ ডিসেম্বর পত্রিকায় প্রকাশিত বিজ্ঞপ্তিতে সুপারের মোবাইল ফোন নাম্বার এবং ‘অফিস চলাকালীন’ শব্দ ব্যবহার হওয়ায় বিজ্ঞপ্তিটি বিধি বহির্ভূত হয়েছে বলে উল্লেখ করেন। এসময় সভাপতি ও শিক্ষানুরাগী এই দুইজন সদস্য সুপারকে সংশোধিত বিজ্ঞপ্তি পত্রিকায় পাঠানোর নির্দেশ দেন। সুপার প্রথম বিজ্ঞপ্তি প্রকাশের মেয়াদ পূর্ণ না হওয়া এবং ম্যানেজিং কমিটির সিদ্ধান্ত
ছাড়া সংশোধিত বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ বিধিসম্মত হবে কি-না জানতে চাইলে তারা মাদরাসার ম্যানেজিং কমিটির সভা আহবানের নোটিশ খাতাটি সুপারের কাছ থেকে জোর করে নেন।

তখন আব্দুল মোহিত সবুজ নিজেই নোটিশ খাতায় (১৪ ডিসেম্বর) ম্যানেজিং কমিটির এক সভা ১৭ ডিসেম্বর সকাল ১১টায় আহবান করেন। ওই নোটিশে মো. আনার উদ্দিন, মো. মাতাবুর রহমান এবং আব্দুল মোহিত সবুজের নাম উল্লেখ থাকলেও স্বাক্ষরের কলামে শুধু আনার উদ্দিন ও আব্দুল মোহিত সবুজের স্বাক্ষর থাকতে দেখা গেছে। তবে ম্যানেজিং কমিটির অন্য সদস্যরা কমিটির এই সভা কিংবা সংশোধিত নিয়োগ বিজ্ঞপ্তির ক্ষেত্রে কিছুই জানেন না বলে জানিয়েছেন।

সুপার জানান, এর আগে গত ৩ ডিসেম্বর কুলাউড়ায় আইসিটি প্রশিক্ষণে অংশ নিতে অনুমতি চেয়ে সভাপতি বরাবরে গত ২ ডিসেম্বর একটি আবেদন করেন তিনি। সভাপতি আবেদন হাতে নিয়ে ব্যস্ততা দেখিয়ে পরবর্তীতে স্বাক্ষর দিবেন মর্মে প্রশিক্ষণে অংশ নিতে মৌখিক অনুমতি দেন সুপারকে। কিন্তু ১৫ ডিসেম্বর সভাপতি আনার উদ্দিন ভারপ্রাপ্ত সুপারকে সাফ জানিয়ে
দেন পুনরায় নিয়োগ বিজ্ঞপ্তির ক্ষেত্রে ১৭ ডিসেম্বর আহবান করা ম্যানেজিং কমিটির নোটিশ খাতায় সকল সদস্যদের নাম লিখা এবং তাদের স্বাক্ষর সংগ্রহ না করলে তিনি আইসিটি প্রশিক্ষণে অংশ নেওয়া সুপারের আবেদনপত্রে স্বাক্ষর তথা অনুমোদন করবেন না। এরপর ১৮ ডিসেম্বর সভাপতি মো. আনার উদ্দিন তার বরাবরে আবেদনপত্র চেয়ে জাতীয় ও স্থানীয় দৈনিক পত্রিকায়
প্রকাশিত বিজ্ঞপ্তিতে পুননিয়োগ আহবান করেন। যা কমিটির অনেক সদস্যই জানেন না। একটি সূত্র জানায়, সুপার পদে সভাপতি সাহেবের একজন পছন্দের প্রার্থী রয়েছেন। তিনিও প্রথম বিজ্ঞপ্তির অনুকূলে আবেদনপত্র জমা দিয়েছেন। নাম প্রকাশ না করার শর্তে স্থানীয় অনেকেই জানান, এটি নিয়োগ বাণিজ্য ছাড়া আর কিছুই নয়।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ১ম বিজ্ঞপ্তির অনুকূলে সুপারসহ অন্যান্য পদে ২৫/২৬টি আবেদন জমা পড়েছে।

তবে সংশোধিত বিজ্ঞপ্তির অনুকূলে কয়টি আবেদন জমা পড়েছে তা জানা যায়নি।

জানতে চাইলে বরমচাল হযরত খন্দকার (রঃ) দাখিল মাদরাসা ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি মো. আনার উদ্দিনের ব্যবহৃত
মোবাইল নাম্বারে (০১৭১৪-২২৭৫২৪) বুধবার দুপুর ১২টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত যোগাযোগের চেষ্টা করে ফোন বন্ধ পাওয়া যায়। তবে তিনি ঢাকায় অবস্থান করছেন বলে জানা গেছে। কুলাউড়া উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মো. আনোয়ার জানান, বরমচাল হযরত খন্দকার (রঃ) দাখিল মাদরাসার নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি সংক্রান্ত বিষয় শুনেছি। নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা ম্যানেজিং কমিটির ব্যাপার। নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে সংশোধনের প্রয়োজন হলে করা যেতে পারে।

আবার পুনরায় বিজ্ঞপ্তি প্রকাশের ক্ষেত্রে প্রথম বিজ্ঞপ্তিপ্রকাশের পর ১৫ দিন পার হতে হবে। তবে উভয় ক্ষেত্রে মাদরাসার
সুপার অবগত থাকতে হবে এবং ম্যানেজিং কমিটির সভায় সিদ্ধান্ত হতে হবে।

Facebook Comments

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..