• বুধবার, ০৮ জুলাই ২০২০, ০৩:৫১ অপরাহ্ন

করোনা ভাইরাসে ও বাস্তবতা নিয়ে শমশেরনগর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান জুয়েল আহমেদের একটি স্ট্যাটাস

  • আপডেট টাইম : শনিবার, ৩০ মে, ২০২০
  • ৩১

আলমগীর হোসেন কমলগঞ্জ, মৌলভীবাজার

আজকাল প্রায় ই দেখা যাচ্ছে একজন করোনা আক্রান্ত রোগী কে আমাদের সমাজের লোকেরা ভিন্ন চোখে দেখে। ভাবটা এমন যেন আক্রান্ত ব্যাক্তি একজন মহাপাপী লোক!

এমনও দেখা যায় আক্রান্ত বিপদগ্রস্ত লোককে সমাজের অন্য লোকেরা অশ্রাব্য ভাষায় গালিগালাজ করতে। আর যারা পেশাগত কারনে করোনার সংস্পর্শে আসছেন তাদের কথা না ই বা বললাম। ডাক্তার, নার্স, আয়া, পুলিশ সাংবাদিক, ইত্যাদি পেশাজীবীদের লোকজন এই সময়ে বাঁকা চোখে দেখছে। বাহিরে যেতে আসতে বাঁধা দিচ্ছেন এমনও অভিযোগ আসছে।

শমশেরনগর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান জুয়েল আহমেদের বাস্তবতা নিয়ে একটি স্ট্যাটাস লিখেছেন নিজ ফেইজবুকে আইডিতে যা তুলে ধরা হলো।

গত কাল একজন রুগী ফোন দিয়ে দু:খ করে বললেন তাকে একজন বয়স্ক লোক তার বাসার সামনে দিয়ে আসা যাওয়ার সময় অকত্য ভাষায় গালাগালি করেন,আজ বিকেল বেলায় আরেকজন রুগী ফোন দিয়ে বললেন তার বাড়ির মানুষের আসা যাওয়ার রাস্তা প্রতিবেশিরা বন্ধ করে দিয়েছেন(অবশ্য পুলিশ প্রশাসন সন্ধায় রাস্তাটি খুলে দিয়েছেন)রাত ১২টায় সংবাদ পেলাম একজন রুগীর অবস্থা খুব খারাপ,সাথে সাথে বাড়ি থেকে বেড়িয়ে গেলাম,রুগীটিকে হাসপাতালে পাঠানোর জন্য,কিন্তু অনেকের সাথে যোগাযোগ করেও একটি গাড়ির ব্যাবস্থা করতে পারলাম না,কেউ করোনা রুগী নিয়ে যেতে রাজি নয়,শেষ পর্যন্ত সুযোগ্য উপজেলা নির্বাহী অফিসার মহোদয় একটি এম্বুলেন্স ব্যাবস্থা করে দিলেন,এখন তার অপেক্ষায় আছি,জানি না আমরা কোথায় আছি,মনে রাখবেন কাল আপনার অতবা আপনার পরিবারের যে কেউ আক্রান্ত হতে পারেন,করোনা যাদের হয়েছে তাদের সাথে এমন কোন আচরন করবেন না।যার জন্য কাল আপনারও একি পরিনতি হতে পারে।আল্লাহ আমাদের বিতরের মনুষত্বকে জাগ্রত করে দাও।

 

Facebook Comments

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..