• শনিবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৬:২৪ অপরাহ্ন

শমশেরনগর চা বাগান চা বাগান এলাকায় কিশোরীকে ধরে নিয়ে ৪ ঘণ্টা আটকিয়ে রেখে ধর্ষণ

  • আপডেট টাইম : সোমবার, ৩ ফেব্রুয়ারী, ২০২০
  • ৩০৪

আলমগীর হোসেন,কমলগঞ্জ মৌলভীবাজার প্রতিনিধি :
মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলার শমশেরনগর চা বাগানে প্লান্টেশন এলাকায় এক কিশোরীকে (১২) ধরে নিয়ে ৪ ঘণ্টা আটকিয়ে রেখে ধর্ষণ করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। শুক্রবার (৩১ জানুয়ারি) বিকাল ৪টায় এই ঘটনা ঘটে।

শনিবার (১ ফেব্রুয়ারি) দুপুর সাড়ে ১২টায় পুলিশ ধর্ষণের অভিযুক্ত সজিব মাঝিকে (২৪) আটক করে।

শমশেরনগর চা বাগান ও শমশেরনগর পুলিশ ফাঁড়ি সূত্রে জানা যায়, গত শুক্রবার শমশেরনগর চা বাগানের নারায়ণ টিলার কিশোরী (১২) পাশের চা প্লান্টেশন এলাকায় প্রাকৃতিক কাজ সারতে যায়। সেখান থেকে ফেরার সময় একই এলাকার সজিব মাঝি (২৪) কিশোরীকে ধরে নিয়ে নির্জন স্থানে আটকিয়ে রেখে ধর্ষণ করে। রাত ৮টায় নির্যাতিতা কিশোরীকে ছেড়ে দিলে সে তার বাসায় ফিরে ঘটনাটি সবাইকে অবহিত করে।

শনিবার দুপুরে নির্যাতিতা কিশোরী ও তার মা শমশেরনগর পুলিশ ফাঁড়িতে উপস্থিত হয়ে পুলিশের কাছে ঘটনাটি অবহিত করে। এরপর শমশেরনগর পুলিশ ফাঁড়ির দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা পরিদর্শক (তদন্ত) অরূপ কুমার চৌধুরীর নির্দেশে এএসআই সৈকতের নেতৃত্বে পুলিশের একটি দল ধর্ষক সজিব মাঝিকে আটক করে।

কিশোরীর মা বলেন, তিনি সকালে কাজে গেলে বাড়িতে মেয়ে একা থাকত। তখন ধর্ষক সজিব তার মেয়েকে নানাভাবে উত্যক্ত করত। শুক্রবার বিকাল ৪টায় মেয়ে (নির্যাতিতা কিশোরী) পাশের চা প্লান্টেশন এলাকায় প্রাকৃতিক কাজে গেলে সেখান থেকে ফেরার সময় সজিব মাঝি তাকে ধরে নিয়ে একটি নির্জন স্থানে আটকিয়ে রেখে ধর্ষণ করে। পরে রাত ৮টায় তাকে আবার ছেড়ে দেয়। তিনি প্রথমে বিষয়টি স্থানীয় ইউপি সদস্য ইয়াকুব আলীকে অবহিত করেছিলেন। পরে শমশেরনগর পুলিশ ফাঁড়িতে মৌখিকভাবে অভিযোগ করেন।

শমশেরনগর ইউনিয়নের চা বাগান এলাকার স্থানীয় ওয়ার্ড ইউপি সদস্য ইয়াকুব আলী ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, অভিযোগটি গুরুতর। এটি সামাজিকভাবে সমাধানের কোন সুযোগ নেই। তাছাড়া ধর্ষকের অভিযুক্তের স্বজনরা নির্যাতিতার চেয়ে উঁচু বর্ণের দাবি করে তারাও কোন সামাজিক সমাধানে যায়নি।

এ ব্যাপারে শমশেরনগর পুলিশ ফাঁড়ির দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা পরিদর্শক (তদন্ত) অরূপ কুমার চৌধুরী ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, প্রাথমিকভাবে বোঝা গেছে কিশোরীর সাথে অভিযুক্তের প্রেমের সম্পর্ক ছিল। এ সম্পর্কের মাঝে এ ধরণের ঘটনা ঘটেছে। চা বাগান থেকে বিভিন্নভাবে বিষয়টি সামাজিকভাবে বসে সমাধান করে কিশোরীকে স্ত্রী হিসেবে গ্রহণের প্রস্তাব আসলেও মেয়েটি অপ্রাপ্ত ও উভয়ের মাঝে উঁচু বর্ণ ও নিম্ন বর্ণ দাবি করে ধর্ষকের অভিযুক্ত এ ধরনের উদ্যোগ মেনে নিতে রাজি হয়নি তাকে আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে।

Facebook Comments

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..