• মঙ্গলবার, ১৫ জুন ২০২১, ১০:০৮ পূর্বাহ্ন

 মালিক সেজে অন্যের ধরন্ত পেঁপে গাছের ডোগা ও পাতা বিক্রি, লক্ষাধিক টাকার ক্ষতি, থানায় অভিযোগ

  • আপডেট টাইম : রবিবার, ২৫ আগস্ট, ২০১৯
  • ১৫৫

 

মোঃ কাসেমুর রহমান শ্রাবণ/বাংলারজমিন২৪

মাগুরা প্রতিনিধি ॥ মাগুরায় মালিক সেজে অন্যের ধরন্ত পেঁপে গাছের ডোগা ও পাতা বিক্রি করায় মিন্টু লস্কারসহ ৩জনের নামে ২১ আগষ্ট মাগুরা সদর থানায় অভিযোগ দায়ের করেছেন গাছের মালিক মিজানুর রহমান মিলন। গত ১৯ আগষ্ট হাজীপুর ইউনিয়নের দ্বারিয়াপুর গ্রামে ঘটনাটি ঘটেছে।

মিজানুর রহমান জানান, ১৯ আগষ্ট আমার দ্বারিয়াপুর গ্রামের ২৫ কাঠার পেঁপে বাগান থেকে মিন্টু ও অজয় মালিক সেজে সদরের বেরইল গ্রামের মোর্শেদ ফকিরের কাছে ডোগা ও পাতা বিক্রি করে। এতে তার ধরন্ত পেঁপে বাগানের পেঁপেসহ প্রতিটি গাছ শুকিয়ে যেতে শুরু করেছে। একারনে তিনি প্রায় লক্ষাধিক টাকার ক্ষতিগ্রস্থ্য হবেন বলে আশংকা করছেন। তিনি জানান, গত ৩ বছর আগে শাহ বারি’র কাছ থেকে জমিটি লিজ নিয়ে পেঁপে বাগান করি। এ বছর প্রায় লক্ষাধিক টাকার পেঁপে বিক্রি হবে বলে আশা করছিলাম। কিন্তু সংঘবদ্ধ চক্রটি নিজেরা বাগানের মালিক সেজে ধরন্ত গাছের ডোগাসহ পাতা বিক্রি করে দেয়ায় আমি ক্ষতির সম্মুখিন হয়েছি। এ কারনে এটির প্রতিকার চেয়ে দুইজন বিক্রেতা ও ক্রেতার নামে মাগুরা সদর থানায় অভিযোগ দায়ের করেছি।

এ ব্যাপারে অভিযুক্ত মিন্টু লস্কর বিষয়টি অস্বীকার করে বলেন, পেঁপে বাগান আমার না। আমি পরের বাগানের ডোগা ও পাতা বিক্রি করতে যাব কি কারনে। এ বিষয়ে আমি কিছু জানি না। তবে, অপর অভিযুক্ত অজয় জানান, পেঁপের ডোগা ও পাতা মিন্টু লস্কর মোর্শেদ ফকিরের কাছে বিক্রি করেছে। এ বাবদ তিনি ৮ শত টাকা নিয়েছেন।

পেপের পাতা ও ডোগা ক্রেতা মোর্শেদ ফকির জানান, ৮ টাকা কেজি দরে একশ কেজি ডোগা ও পাতা মিন্টু লস্কার আমার কাছে বিক্রি করেছে।
মাগুরা সদর থানার কর্মরত এস আই কাজী জুবায়ের জানান, বিষয়টি তদন্তের জন্যে হাজীপুর ফাঁড়ির এ এস আই মিজানুর রহমানকে দায়িত্ব দেয়া হয়েছে।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..