• রবিবার, ০৯ অগাস্ট ২০২০, ০১:৪৪ অপরাহ্ন

কৃষকের ধান ক্রয়ে কোন দূর্নীতি হতে দেয়া হবেনা– চাঁপাইনবাবগঞ্জে খাদ্যমন্ত্রী 

  • আপডেট টাইম : সোমবার, ১৩ জানুয়ারী, ২০২০
  • ১০৩

সিফাতুল্লাহ, চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রতিনিধি:
খাদ্য মন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার বলেছেন, কৃষকের ধান ক্রয়ে কোন দূর্নীতি হতে দেয়া হবে না।দেশ বাঁচাতে হলে কৃষক বাঁচাতে হবে।তাই কৃষক যাতে ধানের নায্য মূল্য পায় তা নিশ্চিত করতে এবং কোন মধ্যস্বত্ত্বভোগী যাতে সুযোগ গ্রহণ করতে না পারে সেবিষয়ে কঠোর থাকতে হবে। মধ্যস্বত্ত্বভোগীর সাথে খাদ্য বিভাগের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সম্পর্ক স্থাপন থেকে বিরত থাকারও নিদের্শনা দেন তিনি।

শনিবার (১১ জানুয়ারী) দুপুরে চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে জেলায় আমন সংগ্রহ উপলক্ষে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের সাথে মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এইসব কথা বলেন তিনি।

খাদ্যমন্ত্রী সভায় উপস্থিত সকলের উদ্দেশ্যে বলেন, আপনারা দূর্নীতি মুক্ত হয়ে দেশের মানুষের জন্য কাজ করবেন।
বাংলাদেশের খাদ্য উৎপাদনের চিত্র তুলে ধরে তিনি আরও বলেন, এখন আমরা খাদ্যে সংয়সম্পূর্নতা অর্জণ করেছি। এখন দেশে উদ্বৃত্ত খাদ্য উৎপাদন হচ্ছে। তাই এখন আমরা খাদ্য আমদানী নয় , বিদেশে রপ্তানির জন্য চেষ্টা করছি। কৃষক যাতে ধানের মূল্য পায় সেজন্য অন্যান্য যে কোন সময়ের চেয়ে চড়া মূল্য দিয়ে ধান কেনা হচ্ছে। কৃষকের নিকট থেকে লক্ষ্যমাত্রা অনুযায়ী ধান কেনার বিষয়টি নির্ধারিত সময়ের আগেই শেষ করা হবে বলে জানান তিনি।

মাঠ পর্যায়ে লটারীর মাধ্যমে কৃষককের নিকট থেকে ধান ক্রয়ের বিড়ম্বনার কথা উল্লেখ করে তিনি আরো বলেন, মাঠ পর্যায়ের কৃষি কর্মকতাদের কৃষকের বাড়ি বাড়ি গিয়ে তালিকা তৈরী করার করার কথা ছিল। কিন্তু সেটি না করে ১০ টাকার ব্যাংক হিসাব অনুযায়ী তালিকা করা হয়েছে। ফলে যে সকল কৃষক ধান উৎপাদন করেনি তাদের সেই কার্ডটি মধ্যস্বত্ত্বভোগীদের কাছে বিক্রি করে দিচ্ছে। এতে এসব মধ্যস্বত্ত্বভোগী লাভবান হচ্ছে বঞ্চিত হচ্ছে প্রকৃত কৃষক। এসব বিষয়ে নজরদারী কারার জন্য খাদ্য বিভাগের কর্মকর্তা কর্মচারীদের নির্দেশনা প্রদান করেন।

জেলা প্রশাসক এ.জেড.এম নুরুল হকের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত মতবিনিময় সভায় বক্তব্য রাখেন, নারী সংসদ সদস্য ফেরদৌসী ইসলাম জেসী, পুলিশ সুপার এমএ রাকিব, বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব মোঃ রুহুল আমিন, চাঁপাইনবাবগঞ্জ চেম্বারের সভাপতি মোঃ এরফান আলী প্রমূখ।

পরে খাদ্যমন্ত্রী জেলা খাদ্য গুদাম পরিদর্শন করেন এবং হরিপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের অর্ধ শতবর্ষ পূর্তি অনুষ্ঠানে যোগ দেন। সভায় খাদ্য ও কৃষি বিভাগের কর্মকর্তাসহ মুক্তিযোদ্ধা ও গণমাধ্যমকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

Facebook Comments

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..