• বুধবার, ১৯ মে ২০২১, ০৭:৩৫ পূর্বাহ্ন

‘বাসা ভাড়ার টাকা নেই তাই স্টেশনে ঘুমাই’

  • আপডেট টাইম : সোমবার, ৯ ডিসেম্বর, ২০১৯
  • ১৪৪

বাংলারজমিন/ডেস্ক রিপোর্ট: কোনো আবাসন ব্যবস্থা না থাকায় রাজধানীর বিভিন্ন খোলা জায়গায় ঘুমোতে হয় ভাসমান মানুষদের। নিম্ন আয়ের বিভিন্ন পেশার সাথে জড়িত এসব মানুষ। আবার কারো স্বজন না থাকায় দিনের প্রয়োজনীয় কাজ শেষে ঘুমাতে আসেন বাস টার্মিনাল ও ট্রেন স্টেশনে।

৫০ বছর বয়সী প্রতিবন্ধী হাবিবুর রহমানের বাড়ি পাবনায়। পেশায় ভিক্ষুক। নিজের হুইল চেয়ারটি গায়ের চাদরের সাথে বেঁধে ঘুমাচ্ছেন কমলাপুর রেলস্টেশনে। কোথাও যাওয়ার জায়গা নেই, তাই ঠাঁই হয়েছে স্টেশনে।

একজন প্রতিবন্ধী বলেন, ‘প্রতিবন্ধী হওয়ায় আমরা অবহেলিত। নিরুপায় হয়ে রাস্তায় থাকি। থাকার জায়গা থাকলেতো রাস্তায় থাকতাম না।’

আরও একজন বলেন, ‘বাসা ভাড়ার টাকা নেই তাই স্টেশনে ঘুমাই।’

একজন বলেন, বাসা ভাড়া ও খাওয়া নিয়ে মাসে অনেক টাকার প্রয়োজন। এই টাকা তো আয় করা বর্তমান সময় দুষ্কর। তাই সারাদিন কাজ করে রাতে ভাল-মন্দ খেয়ে এভাবে ঘুমিয়ে থাকি।

কেউ গায়ের কাপড় দিয়ে বালিশ বানিয়ে অথবা জুতা মাথার নিচে দিয়ে অথবা কেউ বালিশ ছাড়াই খবরের কাগজ বা পলিথিন বিছিয়ে ঘুমিয়ে পড়েন। বিভিন্ন ক্ষুদ্র পেশার এসব মানুষকে ঠাঁই নিতে দেখা যায় গাবতলী বাস টার্মিনালে।

একই চিত্র গুলিস্তানের স্টেডিয়াম এলাকায়। চাদর বা লুঙ্গি মুড়ি দিয়ে রাত পার করছেন হাজার মানুষ। রাজধানীবাসির দাবি, মানবিক কারণে এই মানুষের জন্য কম খরচে থাকার জায়গা করা যেতে পারে।

শীত গ্রীষ্ম বর্ষার নানা দুর্ভোগ উপেক্ষা করেই খোলা আকাশের নিচে থাকতে হয় খেটে খাওয়া এসব মানুষের।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..