• শনিবার, ০৮ মে ২০২১, ১২:৫৩ পূর্বাহ্ন

এলাকাবাসী চোঁখ উপরে ফেল‌লেও বন্ধ হয়‌নি সন্ত্রাসী কার্যক্রম, এখনো অ‌তিষ্ট মানুষ!

  • আপডেট টাইম : শনিবার, ৭ ডিসেম্বর, ২০১৯
  • ৫৪৩

রাজিব হোসেন রাজন,শরীয়তপুর প্রতিনিধি/ চোঁখ দু‌টোই নেই, তবুও র‌য়ে‌ছে এলাকায় প্রভাবশালী সন্ত্রাসী বা‌হিনী। হামলা, মারধর, নির্যাতন, অত্যাচার ও লাঞ্চনার শিকার হ‌য়ে অ‌তিষ্ট ক‌য়েক‌টি এলাকার হাজারও মানুষ। থানায়ও র‌য়ে‌ছে হত্যা’সহ ডজন খা‌নেক মামলা, গড়ে তুলেছে নিজস্ব এক বিশাল বাহিনী। বর্তমা‌নে সরকা‌রি দ‌লে অনুপ্রবেশকারী শরীয়তপু‌রের এক সন্ত্রাসী কানা র‌মি‌জ ও তার বাহিনীর নিয়ন্ত্রণে মাদক, চোরাকারবারি, চাদাবাজি ও টেন্ডারবাজীসহ আছে নানা অপরাধের সাম্রাজ্য। য‌দিও এখন বিচার চে‌য়ে প্রতিবা‌দে রাস্তায় নে‌মে‌ছে সাধারন মানুষ।

শরীয়তপুর সদর উপ‌জেলার চিকন্দি গ্রা‌মের বা‌সিন্দা মোতা‌লেব মাদবর। ২লক্ষ টাকা চাঁদা ‌দি‌তে অস্বীকার করায় কানা র‌মি‌জ বাহিনীর হামলায় এখন পঙ্গু তি‌নি। চলা‌ফেরাও কর‌তে পা‌রছে না বে‌শি একটা, টাকারও অভা‌বে খে‌তে পারে না ঔষধ। তবুও চান একটু শা‌ন্তি‌তে থাক‌তে।
‌মতা‌লেব মাদবর ব‌লেন, আমাকে মার‌পি‌টের প‌রে পা ভে‌ঙে‌ছে, বু‌কের খাচা ভে‌ঙে‌ দিছে। অ‌ভি‌যোগ করায় বা‌ড়িঘ‌রে হামলা লুটিপাট ক‌রে নি‌য়ে গে‌ছে সব‌কিছু। টাকার অভা‌বে ছে‌লে‌কেও এবার পরীক্ষা দি‌তে দেই‌নি। কি কর‌বো জা‌নিনা, ত‌বে এই সন্ত্রাসী মুক্ত এলাকা চাই।

একা‌ধিক ভুক্তভোগীর অ‌ভি‌যোগ, চিক‌ন্দি ইউ‌নিয়‌নসহ আশেপা‌শের ক‌য়েক‌টি এলাকায় এমন ‌রিস্তার ঘটায় এই কানা র‌মিজ বা‌হিনী। ‌জি‌ম্মি ক‌রে রে‌খে‌ছে সাধারন মানুষ‌কে। ব্যাবসা প্র‌তিষ্ঠানও খো‌লে যার কথায়, বা‌হিনীর সদস্যরাও সময় ম‌তো এ‌সে নেন চাঁদার টাকাও। কেউ এ‌তে প্র‌তিবাদ কর‌লে উল্টো হয়রা‌নি হ‌তে হয় ভুক্তভু‌গি‌কে। এমনকি বাড়ি ঘরে হামলা, লুটপাট চালায় রাতের আধারে, আগুন লাগিয়ে পুড়িয়ে দেওয়া হয় সব‌কিছু।

চিকন্দীর বাজারের বিল্লালের মোড়ের এক চায়ের দোকানী জানান, তার কাছ থেকে চা খেতে এসেছিলো কানা রমিজের ছেলে ও তার সন্ত্রাসী গ্রুপের কয়েকজন। চা দিতে একটু দেরী হওয়ায় তাকে বেধরক পিটিয়ে আহত করে তারা। কিন্তু প্র‌তিবাদ করে নাই কেউ, ভ‌য়ে মামলা ক‌রে নাই তি‌নি।

আর এই প্রভাবশালী সন্ত্রাসী বা‌হিনী নিয়ন্ত্রন ক‌রার অ‌ভি‌যোগ র‌য়ে‌ছে শরীয়তপুর সদর উপজেলার চিকন্দী ইউনিয়নের আবুরা গ্রামের আব্দুল আজিজ খাঁর ছেলে রমিজ খাঁ ওরফে কানা রমিজের বিরুদ্ধে। এলাকাবাসীর কাছে যার নাম‌টিও আতংকের। য‌দিও এই কানা বলার পিছ‌নে র‌য়ে‌ছে একা‌ধিক ঘটনা। অন্যায় অত্যাচারে অতিষ্ঠ হয়ে এলাকার মানুষ উপরে ফেলে তার দু‌টি চোঁখ। তুবুও থামা‌নো যায়‌নি তা‌কে, গ‌ড়ে তু‌লে‌ছেন ভয়ংকর বা‌হিনী। রমিজ খাঁর বিরু‌দ্ধে এ‌তো অ‌ভি‌যো‌গ কেন, জান‌তে বা‌ড়ি‌তে গে‌লেও পাওয়া যায়‌নি তা‌কে। ত‌বে তার প্রথম স্ত্রী জানান, তার স্বামী ও সন্তানরা কোন অপরা‌ধী ক‌রে নাই। এলাকায় তা‌দের এ‌মন কোন অ‌ভি‌যোগ নেই। এলাকায় দরবার সালিশ করায় মানুষ এসব কথা ব‌লে।

এ‌দি‌কে বা‌হিনীর প্রধান কানা রমিজের চোঁখ না থাকায় আইনশৃঙ্খলা বাহিনীও তার বিরুদ্ধে নিতে পারে না তেমন কোনো পদক্ষেপ। বরাবরই থাকেন গ্রুপ নিয়ে সুবিধাবাদী রাজনীতির পেছনে। ফলে তার বিরুদ্ধে স্থানীয়রা কেউ কোনো অভিযোগ করতে সাহসও পায় না। ত‌বে অ‌ভি‌যোগ পে‌লেই সা‌থে সা‌থে ব্যবস্থা নেওয়া হয় বল‌ছে পু‌লি‌শ।
‌শরীয়তপুর পু‌লিশ সুপার আব্দুল মে‌মেন ব‌লেন, এ সকল বিষ‌য়ে আমার জানা নেই। য‌দি কেউ সাধারন মানুষ‌কে হয়রা‌নি ক‌রে থা‌কে, তা‌দের বিরু‌দ্ধে আমরা ব্যবস্থা নি‌বো। এরজন্য তি‌নি ভুক্তভোগীদের পু‌লিশের কা‌ছে অ‌ভি‌যোগ করার পরামর্শ দেন।

শরীয়তপুরে চিকন্দীতে র‌য়ে‌ছে সদর সি‌নিয়র সহকা‌রি জজ আদালত। আর এই আদালত পাড়াকে ঘিরেই চলা‌চ্ছে এই সন্ত্রাসের রাজত্ব। ১৯৮৪ সালের ৬ মে এ আদাল‌তে ডাকাতের হাতে খুন হয় কোর্টের মুনসেফ ও তার স্ত্রী। এই হত্যাকা‌ন্ড সহ কা‌য়েক ডজন মামলা র‌য়ে‌ছে কানা রমিজ সহ তার বা‌হিনীর বিরু‌দ্ধে।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..