• বুধবার, ১৯ মে ২০২১, ০৮:২৩ পূর্বাহ্ন

চলন্ত বাসে হিজরাদের বেপরোয়া চাঁদাবাজি

  • আপডেট টাইম : মঙ্গলবার, ৩ ডিসেম্বর, ২০১৯
  • ১৩৪

মিজানুর রহমান, ময়মনসিংহ থেকে: ময়মনসিংহ হাইওয়েতে ভালুকা থেকে ত্রিশাল যেতে, ভরাডোবা বাস স্ট্যান্ড হতে যাত্রীবাহী চলন্ত বাসে লাফিয়ে চড়ে প্রতিনিয়তই চাঁদাবাজি করে যাচ্ছে হিজড়ারা। গাড়ীর ড্রাইভার হেলপারও তাদের কাছে জিম্মি। তাদের বিরুদ্ধে কেউ কিছু বলতে গেলে হেনস্তা করে।

প্রতিদিন সকাল-বিকাল দলবেধে ভরাডোবা বাস-স্ট্যান্ডে ঘোরাফেরা করে। যখন দুরপাল্লার গাড়ী যানযটে পড়ে তখনই লাফিয়ে চড়ে কমপক্ষে জন প্রতি দশটাকা চাঁদা তুলে থাকে কেউ অনিহা প্রকাশ করলে যাত্রীদের সামনেই লাঞ্ছিত করে এবং টাকা দিতে বাধ্য করে।

ময়মনসিংহে প্রতিদিন যাতায়াত করেন এমন বেশ কয়েকজনের সাথে কথা বলে বলে জানা যায়, তৃতীয় লিঙ্গের মানুষগুলোকে আমরা মানবিক দৃষ্টিতে দেখলেও তারা আমাদের অমানবিক দৃষ্টিতে দেখে। তাদের ডিমান্ড পূরণ করতে না পারলেই করজোড়ে হাতা-তালি দেয়, মাঝে মাঝে গায়ে হাত দেয়। পরিবার পরিজন নিয়ে বাসে চলাফেরা করাই এখন ইজ্জতের প্রশ্ন। দেখা যায় ভালুকা উপজেলা হতে চরপাড়া ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ পর্যন্ত হিজড়া সম্প্রদায় কে দুই যায়গায় কমপক্ষে বিশ টাকা চাঁদা দিতে হয়। প্রতিনিয়তই আমরা এ সমস্যায় ভুগছি। আমরা এ সমস্যা থেকে পরিত্রাণ চাই।

অন্যএক যাত্রী জনান, তারা দিনের বেলায় চাঁদাবাজি করে রাতের বেলায় ছিনতাই করে এটাই তাদের পেশা। সরকারী সুযোগ সুুবিধা ভোগ করার পরেও তাদের অত্যাচার বেড়েই চলছে। অবিলম্বে ময়মনসিংহ হাইওয়েতে চলন্ত পরিবহনে হিজড়া সম্প্রদায়ের অবাধে চাঁদাবাজি বন্ধ করে যাত্রীদের দুর্ভোগ লাঘবে প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করছি।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..