• বুধবার, ১৬ জুন ২০২১, ০১:৩২ অপরাহ্ন

মুখে অক্টোপাস নিয়ে পোজ দিতে গিয়ে আইসিইউতে!

  • আপডেট টাইম : সোমবার, ১৯ আগস্ট, ২০১৯
  • ১৪৪

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট/বাংলারজমিন২৪

পৃথিবীতে এসেছেন যখন এমন কিছু তো করতে হবে যাতে ছাপ রেখে যেতে পারেন! এমন ভাবনা থেকেই সম্ভবত ফিশিং ডার্বি ফটো প্রতিযোগিতায় অংশ নিয়েছিলেন ৪৫ বছরের ওয়াশিংটনের বাসিন্দা জেমি বিসকেগলিয়া। সেখানে মুখের ওপর একটি অক্টোপাসকে রেখে পোজ দেন তিনি। সেই ছবি সোশ্যাল মিডিয়ায় দিয়ে ছাপ তো অবশ্যই তিনি ফেললেন দুনিয়াতে। কিন্তু সেই সঙ্গে অক্টোপাসও যে ছাপ রেখে গেল তার মুখে! মুখের বাঁ-দিক জলজ প্রাণির আঁচড়ে-কামড়ে এতটাই ক্ষত-বিক্ষত যে শেষ পর্যন্ত হাসপাতালের ইনটেনসিভ কেয়ারে ছুটতে হয়েছে তাকে।

 

পরে অবশ্য নিজের ভুল স্বীকার করেছেন জেমি বিসকেগলিয়া। বলেছেন, এই ধরনের হটকারি সিদ্ধান্ত নেওয়া একেবারেই উচিত হয়নি তার। আসলে, ফটো প্রতিযোগিতায় সবার থেকে আলাদা কিছু করে দেখাতে গিয়েই আগুপিছু কিছু না ভেবে এমন কাণ্ড ঘটিয়েছেন।

 

এক মৎস্য শিকারির থেকে অক্টোপাসটিকে নিয়ে মুখের ওপর রেখে পোজ দিয়েছেন। আর এত ভালো সুযোগ কি আর ছাড়ে অক্টোপাস? মহিলার মুখের বাঁ-দিকের অধিকাংশই খুবলে খেয়েছে সে! ফটো সেশনের সময় নাকি দু-বার জেমিকে কামড়েছে প্রাণিটি। তারপরেও সমস্ত যন্ত্রণা সহ্য করে ছবি তুলেছেন তিনি।

 

এভাবে ছবি তুলতে গিয়ে কতটা কষ্ট সহ্য করতে হয়েছিল জেমিকে? এক সাক্ষাৎকারে তিন জানান, আচমকাই অক্টোপাসের ধারালো ঠোঁট দিয়ে এমন ভাবে কামড়ে ধরে আমার গাল যে ব্যথার চোটে প্রাণ বেরিয়ে আসার জোগাড়! ভালো করে দেখলে সবাই বুঝতে পারবেন, যন্ত্রণার চোটে আমার চোখ ঠেলে বেরিয়ে এসেছে।

 

আধ ঘণ্টা ধরে এভাবে কামড়ে ধরে থাকার পর অক্টোপাস যখন ছাড়ে জেমিকে তখ রক্তে ভেসে যাচ্ছে বাঁ-দিকের গাল। তারপরেও তিনি দু-দিন হাসপাতালে না গিয়ে ডার্বিতে মাছ ধরেছেন! ফলাফল, গাল-মুখ ফুলে ঢোল। ব্যথার চোটে অসাড় গোটা মুখ।

 

প্রাণ বাঁচাতে এরপর তিনি বাধ্য হয়ে ছোটেন হাসপাতালে। সেখানে ফোলা মুখে আর র‍্যাশ নিয়ে ভর্তি হয়ে আছেন। তিন রকমের অ্যান্টিবায়োটিক খেতে হচ্ছে রোজ।

 

অসম্ভব কাণ্ড ঘটিয়ে সবার কাছে ছাপ রাখতে চেয়েছিলেন বেচারি জেমি। বদলে এভাবে চোখে-মুখে ছাপ নিয়ে ফিরতে হবে তাকে, কে জানত!

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..