• মঙ্গলবার, ১৫ জুন ২০২১, ০৯:৪৯ পূর্বাহ্ন

প্রতিবছর‘জাতীয় জনসংখ্যা দিবস’ পালন করা হয় ২ ফেব্রুয়ারি

  • আপডেট টাইম : রবিবার, ১৮ আগস্ট, ২০১৯
  • ৫২৪

প্রতিবছর দুই ফেব্রুয়ারি ‘জাতীয় জনসংখ্যা দিবস’ পালন করা হয়

 

বাংলাদেশ ও বিশ্বপরিচয়

সুধীর বরণ মাঝি, শিক্ষক

হাইমচর সরকারি মহাবিদ্যালয়, চাঁদপুর

রাবেয়া বেগম হাইমচর উপজেলার একজন সফল সমাজকর্মী। তিনি একটি ’NGO’- তে কর্মরত আছেন। তিনি তার এলাকাবাসীকে সচেতন করার উদ্দেশ্যে পোস্টার,ডকুমেন্টারি, ফ্লিমসহ বিভিন্ন সচেতনমূলক কার্যক্রম হাতে নেন। তিনি মনে করেন, কারো একার পক্ষে এত বড় কার্যক্রম পরিচালনা করা সম্ভব নয়।

ক) বাংলাদেশে ’জাতীয় জনসংখ্যা দিবস’ পালন করা হয় কত তারিখে ?                                                                                                                                                                                       খ) কমিউনিটিভিত্তিক পরিবার পরিকল্পনা প্রকল্পের কার্যক্রম ব্যাখ্যা কর।                                                                                                                     গ) রাবেয়া বেগমের কাজ জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণের কাজে সহযোগিতা করা,এটি কোন ধরনের উদ্যোগ ? ব্যাখ্যা কর।                                                                                                                                                                             ঘ) তুমি কি মনে কর,উক্ত উদ্যোগটিই জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণের জন্য যথেষ্ট ? মতামত দাও।

ক) উত্তর : প্রতিবছর ২ ফেব্রুয়ারি বাংলাদেশে ‘জাতীয় জনসংখ্যা দিবস’ পালন করা হয়।

খ) উত্তর : জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণে বাংলাদেশে কর্মরত বেসকারি সংস্থাগুলো নানারকম কার্যক্রম পরিচালনা করে,তার মধ্যে অন্যতম কমিউনিটিভিত্তিক পরিবার পরিকল্পনা প্রকল্প। কমিউনিটিভিত্তিক পরিবার পরিকল্পনা প্রকল্পের আওতায় গ্রাম ও শহরের দরিদ্র জনগোষ্ঠীকে পরিবার ছোট রাখার জন্য পরামর্শ ও শিক্ষা দেয়া হয়। পরিবার পরিকল্পনা গ্রহণে তাদেরকে উত্সাহ দেয়া হয়। তাছাড়া গর্ভবতী মহিলাদের টিকা দান এবং প্রসবকালীন ও প্রসবোত্তর নবজাতকের সেবা,মা ও শিশুর অপুষ্টি দূরীকরণের জন্য ফলপ্রসূ ব্যবস্থা গ্রহণ ও সেবা প্রদান করা হয়।

গ) উত্তর : রাবেয়া বেগমের কাজ জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণের কাজে সহযোগিতা করা এটি বেসরকারি ধরনের উদ্যোগ। বাংলাদেশের জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণে স্থানীয়,জাতীয় ও আন্তর্জাতিক পর্যায়ে বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থাগুলো (NGO) গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে। তাদের কার্যক্রমের মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো কমিউনিটিভিত্তিক পরিবার পরিকল্পনা প্রকল্প,দুই সন্তানের পরিকল্পিত পরিবার গড়ার লক্ষ্য বাস্তবায়ন,বাল্যবিবাহ রোধ উদ্বুদ্ধকরণ,প্রশিক্ষণ কার্যক্রম ও ধর্মীয় নেতাদের উদ্বুদ্ধকরণ কর্মসূচি। এছাড়াও সচেতনতা কার্যক্রমের অংশ হিসেবে বেসরকারি সংস্থাগুলোর পরিবার পরিকল্পনা বিষয়ে সাময়িকী, পোস্টার,ক্যালেন্ডার, চার্ট,নিউজলেটার প্রকাশ ও ডকুমেন্টারি ফ্লিম প্রদর্শন করে থাকে। উদ্দীপকে রাবেয়া বেগম একটি ‘NGO’- তে কর্মরত আছেন। জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণের উদ্দেশ্যে তিনি নিজ এলাকায় পোস্টার, ডকুমেন্টারি ফ্লিমসহ বিভিন্ন সচেতনমূলক কার্যক্রম পরিচালনা করেন। সুতরাং তার এসব কর্মকাণ্ড বেসরকারি উদ্যোগ হিসেবে পরিগণিত।

ঘ) উত্তর : না,আমি মনে করি,উক্ত উদ্যোগটি তথা বেসরকারি উদ্যোগই জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণের জন্য যথেষ্ট নয়। এর পাশাপাশি সরকারি উদ্যোগও অপরিহার্য। বাংলাদেশের একটি সামাজিক সমস্যা হলো অতিরিক্ত জনসংখ্যা। এ সমস্যা সমাধানে উদ্দীপকে বর্ণিত বেসরকারি উদ্যোগের পাশাপাশি সরকারি উদ্যোগেও বিভিন্ন কার্যক্রম পরিচালিত হচ্ছে। সরকার নিরক্ষরতা দূরীকরণ ও শিক্ষার হার বাড়ানোর জন্য প্রাথমিক ও গণশিক্ষাকে অগ্রাধিকার দিয়েছে। এই লক্ষ্যে ২০১৪ সালের মধ্যে নিরক্ষরতা দূর এবং ২০১৫ সালের মধ্যে সবার জন্য শিক্ষা নিশ্চিত করার পরিকল্পনা গ্রহণ করে। পাশাপাশি নারী শিক্ষার প্রসারে ষষ্ঠ শ্রেণি থেকে স্নাতক শ্রেণি পর্যন্ত উপবৃত্তি প্রদানের ব্যবস্থা করেছে। এছাড়াও সরকার পরিবার ছোট রাখার জন্য স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কার্যক্রম চালু করেছে। জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণের কৌশল হিসেবে সরকারের পক্ষ থেকে কাজি অফিসে বিয়ে রেজিস্ট্রেশনের ওপর জোর দেয়া হয়েছে। পরিবারে অধিক জনসংখ্যার কুফল সম্পর্কে টেলিভিশনে ডকুমেন্টারি ফ্লিম প্রদর্শন করা হয়। বিভিন্ন সর্বোপরি জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণে নারীদের ভূমিকা অপরিহার্য। এ বিষয়টি সামনে রেখে সরকার হাঁস-মুরগির খামার ও মাছ চাষের মতো আয় বৃদ্ধিমূলক কর্মসূচিতে নারীদের ওপর গুরুত্ব আরোপ করেছে। এছাড়াও নারীর ক্ষমতায়নের জন্য ও সচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে এসব উদ্যোগ জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। পরিশেষে বলা যায়, রাবেয়া বেগমের তথা বেসরকারি উদ্যোগই জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণে যথেষ্ট নয়। বরং বেসরকারি উদ্যোগের পাশাপাশি সরকারি উদ্যোগও অপরিহার্য।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..