• বৃহস্পতিবার, ১৭ অক্টোবর ২০১৯, ০৫:০০ পূর্বাহ্ন

বশেমুরপ্রবি’র ভিসির পদত্যাগ দাবী প্রাক্তন শিক্ষার্থীদের

  • আপডেট টাইম : রবিবার, ২২ সেপ্টেম্বর, ২০১৯
  • ২৫ বার পঠিত

মুহাম্মদ ইলিয়াস হোসেন

গোপালগঞ্জের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (বশেমুরবিপ্রবি) শিক্ষার্থীদের ওপর সন্ত্রাসী হামলার প্রতিবাদে এবং ভিসি খন্দকার নাসিরুদ্দিনের অবিলম্বে পদত্যাগের দাবি করেছে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাক্তন শিক্ষার্থীরা। তারা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সন্ত্রাসবিরোধী রাজু ভাস্কর্যের পাদদেশে ২২ সেপ্টেম্বর (রোববার) দুপুরে এক মানববন্ধনে এই প্রতিবাদ ও ভিসির পদত্যাগ দাবী করেন।

এসময় বশেমুরপ্রবি’র প্রাক্তন এই শিক্ষার্থীরা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভিসির পদত্যাগ দাবীতে আন্দোলনকারীদের সাথে একাত্মতা পোষণ করেন। মানববন্ধনে প্রাক্তন শিক্ষার্থী প্রভাত বিশ্বাস, শশী প্রসাদ, ভবতোষ বৈরাগী, আবদুল্লাহ আল নোমান, মোহাম্মদ কামরুল ইসলাম, ফয়সাল হোসেন আরিফ, শিপন ভূঁইয়া সহ আরো অনেকে অংশ নেন।

শশী প্রসাদ বলেন, ‘আমাদের প্রাণের বিশ্ববিদ্যালয়ের সম্মান রক্ষার্থে, আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের ওপর যে বর্বরোচিত হামলা করা হয়েছে তার বিচারের দাবিতে এখানে দাঁড়িয়েছি। আমরা এই বর্বোরোচিত হামলার বিচার চাই। ভিসি শিক্ষার্থীদের যে সাংবিধানিক অধিকার রয়েছে তা খর্ব করেছেন। তাই আমরা ভিসির পদত্যাগ দাবি করছি।’

আরেক প্রাক্তন শিক্ষার্থী কামরুল বলেন, ‘আপনারা জানেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের পূণ্যভূমি গোপালগঞ্জে তার নামে একটি বিশ্ববিদ্যালয়ে রয়েছে। ওই বিশ্ববিদ্যালয়ে যে স্বপ্ন আশা-আকাঙ্ক্ষা নিয়ে বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা বিশ্ববিদ্যালয় করেছিলেন, সে বিশ্ববিদ্যালয়ে এমন একজনকে ভিসি বানানো হয়েছে যিনি বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন করেছেন। আমরা তার বিরুদ্ধে অবস্থান কর্মসূচি পালন করছি। আমি মনে করি, তিনি একটি গুরুত্বপূর্ণ পদকে কলূষিত করেছেন। আমরা এ ভিসির পদত্যাগ চাই।’

মানববন্ধনে প্রাক্তন শিক্ষার্থীরা ‘ভিসির পেটোয়াবাহিনী’র অবিলম্বে গ্রেপ্তার চাই, ‘সন্ত্রাসী হামলায় প্রশাসন চুপ কেন’, ‘আমার ভাই বোনের রক্ত ঝরালে কেন, জবাব চাই জবাব চাই’, ‘দিয়েছি তো রক্ত আরো দেবো রক্ত’ স্লোগান সম্বলিত প্ল্যাকার্ড প্রদর্শন করেন।

উল্লেখ্য, বশেমুরপ্রবি’র ভিসি খন্দকার নাসির উদ্দিন ‘বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান কাজ কি?’ ফেইসবুকে এমন একটি স্ট্যাটাস দেয়ায় ফাতেমা তুজ জিনিয়া নামের এক শিক্ষার্থীকে সাময়িক বহিষ্কার করেন। এর আগেও ফেইসবুকে স্ট্যাটাস দেয়াকে কেন্দ্র করে বেশ কয়েকজন শিক্ষার্থীকে সাময়িক বহিষ্কার করেন। তুচ্ছ কারণে বহিষ্কারসহ শিক্ষার্থীদের গালি দেয়া, নারীর শ্লীলতাহানিসহ তার বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ রয়েছে। এ কারণে শিক্ষার্থীরা ক্ষিপ্ত হয়ে গত তিনদিন যাবৎ তার পদত্যাগ দাবীতে আন্দোলন শুরু করলে শনিবার(২১ সেপ্টেম্বর) ভিসি বাহিনী শিক্ষার্থীদের উপর হামলা করে।

Facebook Comments

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..