• বৃহস্পতিবার, ০৭ জুলাই ২০২২, ১২:২৯ পূর্বাহ্ন

তিন মাসের নিষেধাজ্ঞা সুন্দরবনে

  • আপডেট টাইম : বৃহস্পতিবার, ১৬ জুন, ২০২২
  • ৪৫

সুন্দরবনে মাছ ধরায় তিন মাসের নিষেধাজ্ঞা চলছে। মোংলা উপকূলের প্রায় অর্ধেক জেলেই অনিবন্ধিত, তাই সরকারি সহায়তা মিলছে না তাদের। শিগগিরই অনিবন্ধিত জেলেদের সহায়তার আওতায় আনার আশ্বাস স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের।

সুনশান নীরব জেলেপল্লী। নেই কোনো কর্মচাঞ্চল্য। বেশিরভাগ জেলেই এখন বেকার। সুন্দরবনের নদী ও খালে তিন মাসের জন্য মাছ ধরার ওপর নিষেধাজ্ঞা চলছে। বিকল্প কোনো পেশা না থাকায় সবচেয়ে বেশি বিপাকে পড়েছেন অনিবন্ধিত জেলেরা।

অনেকে জীবিকার অভাবে নদীতে পোনা মাছ ধরছেন। কিন্তু তাতেও সংসার চলছে না তাদের। সরকারি সহায়তার পাশাপাশি বিকল্প কর্মসংস্থানের জন্যও সুযোগ চান তারা।

জেলেরা বলেন, ‘আমাদের বেঁচে থাকার একমাত্র মাধ্যম এ সুন্দরবন। এর আগে ৮ মাস আমরা প্রায় কাজ ছাড়া ছিলাম। এখন আবার যুক্ত হলো তিন মাস। সরকারকে বলব, আমাদের দিকটাও একটু দেখুন।’

অবশ্য অনিবন্ধিত জেলেদের সরকারি সহায়তার আওতায় আনার আশ্বাস দিয়েছেন স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা।

চিলা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান গাজী আকবার হোসেন বলেন, ‘জেলেরা যাতে অন্তত নিবন্ধনের আওতায় আসে, তাদের রুজি-রুটির ব্যবস্থা হয়, সেদিকে নজর দিচ্ছি আমরা।’

নতুন নিবন্ধনের জন্য জেলেদের তথ্য সংগ্রহ করা হচ্ছে বলে জানান উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা।

স্থানীয় উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা তৌহিদুর রহমান বলেন, ‘যেসব জেলে এখনও অনিবন্ধিত অবস্থায় আছেন, তাদের তথ্য হালনাগাদ করার ব্যবস্থা করা হচ্ছে। দ্রুততার সঙ্গে এ কাজ সম্পন্ন করা হবে।’

মৎস্য বিভাগের তথ্য মতে, সুন্দরবনের মোংলা উপকূলে জেলে রয়েছেন সাড়ে ১১ হাজার। এরমধ্যে নিবন্ধিত জেলে ৬ হাজার ৬৫৫ জন।

সূত্র- সময় টিভি
ডেস্ক রিপোর্ট/ জান্নাত

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..