• মঙ্গলবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৫:৩১ পূর্বাহ্ন

পাকিস্তান কি মোশাররফ আমলে ফিরে যাচ্ছে?

  • আপডেট টাইম : মঙ্গলবার, ৩১ আগস্ট, ২০২১
  • ৩৯

বাংলারজমিন২৪.কম ডেস্কঃ

আফগানিস্তান থেকে পাকিস্তানে আসা মার্কিন সেনাদের দীর্ঘস্থায়ী উপস্থিতির সন্দেহ উড়িয়ে দিয়েছেন দেশটির স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী শেখ রশিদ আহমেদ। তিনি বলেন, দেশে যেসব বিদেশি উপস্থিতি আছেন, তাদের ২১ থেকে ৩০ দিনের জন্য ট্র্যানজিট ভিসা দেওয়া হয়েছে। এরপর তারা নিজ দেশে ফিরে যাবেন।

পাকিস্তান ফের জেনারেল পারভেজ মোশাররফ আমলে ফিরে যাচ্ছে বলে যে কথা শোনা যাচ্ছে তা সরাসরি প্রত্যাখ্যান করেছেন তিনি। এছাড়া কেন্দ্রীয় রাজধানী ইসলামাবাদে আমেরিকানদের জন্য হোটেল বুকিং দিয়েছে সরকার বলে যে অভিযোগ জমিয়ত উলামা-ই-ইসলামের প্রধান দাবি করেছেন; তারও তিরষ্কার করছেন পাকিস্তানের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী।

প্রশ্নের জবাবে শেখ রশিদ আহমেদ বলেন, তোর্কহাম সীমান্ত দিয়ে দুই হাজার ১৯২ জন পাকিস্তানে প্রবেশ করেছেন। তাদের মধ্যে এক হাজার ৬২৭ জন আকাশযোগে ইসলামাবাদে পৌঁছান। চামান সীমান্ত নিয়ে গুটিকয়েক লোক এসেছেন।-খবর ডন অনলাইনের

প্রতিদিনই চামান সীমান্ত নিয়ে বহু লোক পাকিস্তান ও আফগানিস্তানে ভ্রমণ করেন। সীমান্ত দিয়ে বহু পাকিস্তানি আফগানিস্তানে যান, আবার দেশে ফিরে আসেন। এটি স্বাভাবিক তৎপরতা বলে উল্লেখ করেন তিনি।

আফগানিস্তান থেকে যারা এসেছেন, তাদের কাছ থেকে কোনো অর্থ আদায় করা হচ্ছে না। এটি কোনো লাভজনক কার্যক্রম না বলেও মন্তব্য করেন পাকিস্তানের এই মন্ত্রী। তিনি বলেন, এই তৎপরতার মধ্য দিয়ে কোনো তহবিল সংগ্রহ আমাদের উদ্দেশ্য না। এসব লোকদের কাছ থেকে স্বাভাবিক ভিসা ফি আদায় করা হচ্ছে। আর অন অ্যারাইভাল ভিসার বিনিময়ে কোনো পয়সা নেওয়া হচ্ছে না।

তোর্কহাম ও চামান সীমান্ত থেকে পাকিস্তানে ঢোকা ব্যক্তিদের মর্যাদা কী হবে; তা নিয়ে প্রশ্ন করা হলে পাকিস্তানি স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, তাদের কাউকেই শরণার্থীর মর্যাদা দেওয়া হচ্ছে না।

এর আগে কাবুল বিমানবন্দরের বাইরে বৃহস্পতিবারের বিস্ফোরণ নিয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, অভিবাসীদের ঢল নামার শঙ্কা ছিল আমাদের। তা কিন্তু ঘটেনি। একটি দায়িত্বশীল দেশ হিসেবে পাকিস্তান নিজেদের নিরাপত্তা রক্ষার পাশাপাশি আন্তর্জাতিক প্রত্যাশা পূরণ করবে। আফগান শান্তিপ্রক্রিয়ায় ঐতিহাসিক ভূমিকা পালন করেছে পাকিস্তান।

শেখ রশিদ আহমেদ বলেন, আফগানিস্তানে শান্তি প্রতিষ্ঠায় আর কোনো দেশ পাকিস্তানের মতো আত্মত্যাগ করেনি। পাকিস্তানের শান্তি ও স্থিতিশীলতার সঙ্গে আফগানিস্তানের শান্তি ও স্থিতিশীলতার সম্পর্ক রয়েছে।

আফগানিস্তান থেকে সব পাকিস্তানিকে সরিয়ে আনা হয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, এখনো ৩০ থেকে ৪০ পাকিস্তানে সেখানে রয়ে গেছেন। আফগানিস্তানে তাদের পরিবার থাকায় এখানে তারা ফিরে আসতে রাজি না। তারা আফগানিস্তানেই থেকে যাবেন বলে জানিয়েছেন।

 

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..