• বুধবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৮:৩১ পূর্বাহ্ন

মাঝিরকান্দি ঘাট চালু হচ্ছে?

  • আপডেট টাইম : বৃহস্পতিবার, ২৬ আগস্ট, ২০২১
  • ৩৭

বাংলারজমিন২৪.কম ডেস্কঃ

অবশেষে সরছে মাদারীপুরের বাংলাবাজার ঘাট। শুক্রবার (২৭ আগস্ট) থেকে চালু হতে পারে শরীয়তপুরের মাঝিরকান্দি ঘাট। তাই আটদিন বন্ধ থাকার পর দেশের গুরুত্বপূর্ণ ফেরি সার্ভিস সীমিত আকারে চালু হচ্ছে বলে আভাস দিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা। এদিকে এই ফেরি সার্ভিস বন্ধ থাকায় মানুষকে সীমাহীন দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে।

মাঝিরকান্দিতে ফেরির পল্টুন স্থাপন চলছে এখন। তৈরি করা হয়েছে পল্টুন সংযোগ সড়ক। মাঝিরকান্দি থেকে সড়ক পথে পদ্মা সেতুর জাজিরা পয়েন্টে দূরত্ব ৫ কিলোমিটার। দক্ষিণাঞ্চল থেকে শিমুলিয়াগামী যানবাহন এই সড়কে মাঝিরকান্দি ঘাট ব্যবহার করবে।

শিমুলিয়াঘাট থেকে দক্ষিণাঞ্চলগামী যানবাহনগুলো মাঝিরকান্দি ঘাটে নেমে বিকল্প পথ কাজীরহাট হয়ে পদ্মা সেতুর জাজিরা পয়েন্ট দিয়ে দক্ষিণাঞ্চলের যাবে। মাঝিরকান্দি থেকে এই ঘুরপথে জাজিরা পয়েন্টের দূরত্ব ২২ কিলোমিটার। রাস্তা সরু হওয়ার কারণে ওয়ানওয়ে ব্যবহার করতে হচ্ছে।

বিআইডব্লিউটিএ’র শিমুলিয়া বন্দর কর্মকর্তা শাহাদাৎ হোসেন জানান, জরুরি পরিস্থিতিতে ঘাট তৈরি করা হচ্ছে। আপাতত মিডিয়াম ফেরি চলাচল করতে পারবে। মাঝিরকান্দি ঘাটের মূল চ্যালেঞ্জ পর্যাপ্ত রাস্তার অভাব। মাঝিরকান্দি ঘাট থেকে পর্যাপ্ত রাস্তা না থাকায় পুরোদমে ফেরি সার্ভিস চালু করা যাচ্ছে না।

মাঝিরকান্দি ঘাট ব্যবহার করে আপদকালীন সময়ে সীমিত ফেরি সার্ভিস চালুর ব্যাপারে বৃহস্পতিবার (২৬ আগস্ট) বেলা আড়াইটায় জরুরি ভার্চুয়াল সভা ডাকা হয়েছে।

এই সভায় শরীয়তপুর ও মাদারীপুরের জেলা প্রশাসক, পুলিশ সুপার, বিআইডব্লিউটিএ, বিআইডব্লিউটিসি, পদ্মা সেতু কর্তৃপক্ষ ও সেনাবাহিনীর প্রতিনিধি অংশ নিবেন। এই সভা থেকে ঘাট চালুর বিষয়ে সিদ্ধান্ত আসবে।

গত ১৮ আগস্ট থেকে পদ্মায় প্রবল দাবি ফেরি চলাচল অনির্দিষ্ট কালের জন্য বন্ধ করে দেয় বিআইডব্লিউটিসি। দেশের অন্যতম প্রধান এই ফেরি সার্ভিস গত ৮ দিন ধরে বন্ধ থাকায় মানুষের দুর্ভোগ চরম আকার ধারণ করেছে।

তবে শিমুলিয়া-বাংলাবাজারের পরিবর্তে শিমুলিয়া-মাঝিরকান্দির ঘাট চালু হওয়ায় মাঝিরকান্দির স্থানীয়রা খুশি। আর বিষাদে রূপ নিয়েছে বাংলাবাজার এলাকার লোকজনের।

পদ্মা সেতুর নদী শাসনের কাজের জন্য কাঁঠাবাড়িঘাট ১১৫ কোটি টাকা ব্যয়ে সরিয়ে নেয়া হয় বাংলাবাজার ঘাটে। গেল ১৫ নভেম্বর বাংলাবাজার ঘাট উদ্বোধন হয়। পরিকল্পনার অভাবের কারণে এতবড় গচ্ছা যাচ্ছে। অথচ কাঁঠাবাড়ি ঘাট সরানোর প্রয়োজন দেখা দেওয়ায় এটি মাঝিরকান্দিতে সরিয়ে নিলে এই সঙ্কট এড়িয়ে চলা সম্ভব ছড়াও আর্থিক সাশ্রয় করা সম্ভব ছিল।

মাঝির কান্দিতে ঘাট নিয়ে আসায় ফেরি পথের দূরত্ব কমবে ৩ কিলোমিটার। এতে সময় এবং জ্বালানি সাশ্রয় হবে। তবে সড়ক পথের দূরত্ব বেড়ে যাবে।

সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন, ঘাটের প্রশাস্ত সড়ক তৈরি হয়ে গেলে সব ধরনের ফেরি চলাচল করবে।

গত ২৩ জুলাই ফেরি শাহজালাল পদ্মা সেতুর খুঁটিতে ধাক্কা দেয়ার ঘটনায় গঠিত তদন্ত কমিটি বাংলাবাজারঘাট মাঝিরকান্দি বা শিমুলিয়াঘাট মাওয়ায় স্থানান্তরের সুপারিশ করে। ২৫ জুলাই পেশ করা এই সুপারিশ যথা সময়ে কার্যকর শুরু করলেও আটদিন ধরে ফেরি বন্ধ রাখতে হত না বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা। এখনও দায়িত্বশীলদের অনাগ্রহ লক্ষ্য করা যাচ্ছে বলে মনে করছেন স্থানীয়রা।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..