• বৃহস্পতিবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০২:৩৭ অপরাহ্ন

টাকা না দিলে করোনা রিপোর্ট পজিটিভ করে দেব!

  • আপডেট টাইম : মঙ্গলবার, ২৪ আগস্ট, ২০২১
  • ২৯

বাংলারজমিন২৪.কম ডেস্কঃ

বিদেশগামী ও বিদেশ গমনেচ্ছুক লোকজনকে সরকারি বিধি মোতাবেক করোনা পরীক্ষা করতে হবে। করোনা রিপোর্ট নেগেটিভ আসলে তবেই বিদেশ যাওয়াটা সহজ হবে। এজন্য প্রতিদিন ভোর থেকে নোয়াখালী সিভিল সার্জন কার্যালয়ের সামনে এসে লাইনে দাঁড়ান শত শত বিদেশ গমনেচ্ছুক লোকজন।

এ সুযোগকে কাজে লাগিয়ে গত কয়েকদিন ধরে করোনা রিপোর্ট পজিটিভ করে সার্টিফিকেট দেওয়ার ভয় দেখিয়ে টাকা হাতিয়ে নিচ্ছিল এক যুবক। অবশেষে ধরা পড়লো সে।

সোমবার সকালে নমুনা দিতে আসা লোকজনের সহযোগিতায় কামরুল ইসলাম (১৮) নামের ওই যুবককে আটক করে সিভিল সার্জন কার্যালয়ের লোকজন। আটক কামরুল ইসলাম বেগমগঞ্জ উপজেলার একলাশপুর ইউনিয়নের বকশি ভূঁইয়া বাড়ির আবুল হোসেনের ছেলে।

জেলা সিভিল সার্জন ডা. মাসুম ইফতেখার জানান, আমরা সাধারণত বিদেশগামী লোকজনের শরীর থেকে নমুনা সকালে সংগ্রহ করে থাকি। নমুনা সংগ্রহ শেষে বিকেল থেকে সন্ধ্যার মধ্যে তাদের রিপোর্ট দেওয়া হয়।

গত ৩-৪ দিন থেকে রিপোর্ট নিতে আসা কয়েকজন আমাদের কাছে অভিযোগ করে, মোবাইলে তাদের জানানো হয়েছে টাকা না দিলে রিপোর্ট পজিটিভ করে দেওয়া হবে। এমন অভিযোগের ভিত্তিতে গত কয়েকদিন আমরা ওই কলকারীকে আটক করার চেষ্টা করি।

সোমবার সকাল ৮টার দিকে নমুনা দিতে লাইনে থাকা লোকজনের তথ্য সংগ্রহকালে কামরুল ইসলাম নামের একজনকে আটক করা হয়। জিজ্ঞাসাবাদে অভিযোগ প্রমাণ হওয়ায় তাকে থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে। ঘটনায় আমাদের পক্ষ থেকে একটি মামলা দায়ের করা হবে।

তিনি আরও জানান, কামরুল লাইনে অপেক্ষমাণ লোকদের কাছ থেকে তাদের মোবাইল নাম্বারসহ তথ্য সংগ্রহ করে, বিকেলে ওই মোবাইল নাম্বারগুলোতে কল দিয়ে প্রতারণার মাধ্যমে রিপোর্ট প্রত্যাশীদের কাছে টাকা দাবি করতো। কেউ টাকা দিতে অপারগতা প্রকাশ করলে তার রিপোর্ট পজিটিভ করে দিবে বলে হুমকি দিতো সে।

জেলা পুলিশ সুপার মো. শহীদুল ইসলাম, সিভিল সার্জন কার্যালয়ের মাধ্যমে কামরুল ইসলামকে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করা হয়েছে। ঘটনায় প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..