• মঙ্গলবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৪:৩৩ পূর্বাহ্ন

ভারতের উপহার ৩০টি অ্যাম্বুলেন্স বেনাপোলে

  • আপডেট টাইম : শনিবার, ৭ আগস্ট, ২০২১
  • ৩৭

বাংলারজমিন২৪.কম ডেস্কঃ

করোনার এই ক্রান্তিকাল সময়ে পাশে দাঁড়াতে এবার বন্ধুত্বের হাত বাড়িয়েছে ভারত। উপহারের ১০৯টি লাইফ সাপোর্ট অ্যাম্বুলেন্সের মধ্যে দ্বিতীয় চালানে ৩০টি অ্যাম্বুলেন্স বেনাপোল বন্দরে প্রবেশ করেছে।

শনিবার (৮ আগস্ট) সকাল ১০টায় ভারতের পেট্রাপোল বন্দর দিয়ে অ্যাম্বুলেন্সগুলো বেনাপোল বন্দরে আসে। এর আগে গত ২১ মার্চ উপহারের একটি অ্যাম্বুলেন্স এসেছিল বেনাপোল বন্দরে।

ব্যবসায়ীরা বলছেন, ভারত করোনার দ্বিতীয় ধাক্কায় একরকম সামলে উঠলেও বাংলাদেশে চলছে মহামারি অবস্থা। প্রতিদিন আক্রান্ত ও মৃত্যুর নতুন নতুন রেকর্ড সৃষ্টি হচ্ছে। এমন সময় অ্যাম্বুলেন্স উপহার যেমন মানুষের জীবন বাঁচাতে সাহায্য করবে তেমনি দুই দেশের মধ্যে বাণিজ্যের সম্পর্কের পাশিপাশি বন্ধুত্ব ও সৌহার্দ্যের সম্পর্ককে আরও জোরদার করবে।

জানা যায়, দুই দিনের সরকারি সফরে গত ২৬ মার্চ ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি আসেন ঢাকা সফরে। এসময় তিনি স্বাস্থ্যসেবা উন্নয়নের জন্য বিশেষ করে কোভিড-১৯ মহামারি মোকাবিলার যৌথ প্রচেষ্টায় বাংলাদেশ সরকারকে ১০৯টি লাইফ সাপোর্ট অ্যাম্বুলেন্স উপহার দেওয়ার কথা ঘোষণা করেছিলেন।

গত ২১ মার্চ প্রথম চালানে একটি অ্যাম্বুলেন্স এসেছিল বাংলাদেশে। এবার দ্বিতীয় চালানে ৩০টি অ্যাম্বুলেন্স প্রবেশ করে বাংলাদেশে।

অ্যাম্বুলেন্সের আমদানিকারক ঢাকায় নিযুক্ত ভারতীয় হাইকমিশনার। বন্দর থেকে ছাড় করাতে প্রয়োজনীয় কাগজপত্রের আনুষ্ঠানিকতা সম্পূর্ণ করছেন সিঅ্যান্ডএফ এজেন্ট জেড আর করপোরেশন। শুল্কমুক্ত সুবিধায় উপহারের অ্যাম্বুলেন্স কাস্টমস থেকে ছাড় হচ্ছে। পরে ঢাকার উদ্দেশে নেওয়া হবে।

এর আগে চলতি বছরের মাঝামাঝিতে ভারতে যখন অক্সিজেন আর ওষুধ সংকটে মহামারি অবস্থা চলছিল তখন বাংলাদেশ বন্ধুত্বের জানান দিতে করোনা প্রতিরোধে সহায়ক ৫ ট্রাক ওষুধসহ বিভিন্ন উপকরণ সহায়তা করে।

ভারতের পেট্রাপোল সিঅ্যান্ডএফ স্টাফ অ্যাসোসিয়েশনের সেক্রেটারি কার্তিক চন্দ্র জানান, শনিবার (৭ আগস্ট) ভারত বন্ধুত্বের হাত বাড়াতে অ্যাম্বুলেন্স দিয়েছে। বাংলাদেশও করোনা প্রতিরোধ ওষুধ দিয়ে সহায়তা করেছে ভারতকে। এটা দুই দেশের মধ্যে বন্ধুত্বের পাশাপাশি বাণিজ্যিক সম্পর্ককে আরও জোরদার করবে।

বেনাপোল সিঅ্যান্ডএফ অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি মফিজুর রহমান সজন জানান, করোনার এ মহামারির সময়ে অ্যাম্বুলেন্স উপহারের মাধ্যমে ভারত আবারও বন্ধুত্বের জানান দিল। বাংলাদেশও তাদের পাশে থেকেছে সাধ্যমতো। আগামীতেও এমন ধারা অব্যাহত থাকবে।

বেনাপোল আমদানি রপ্তানি সমিতির সহসভাপতি আমিনুল হক জানান, ১০৯টির মধ্যে দুই চালানে ৩১টি অ্যাম্বুলেন্স এসেছে বাংলাদেশে। বাকি অ্যাম্বুলেন্সগুলো সেপ্টেম্বরের শেষের দিকে পর্যায়ক্রমে পৌঁছাবে বলে আমদানিকারক সূত্রে জানা গেছে।

বেনাপোল বন্দরের সহকারী পরিচালক আতিকুল ইসলাম জানান, ভারত সরকারের ৩০টি অ্যাম্বুলেন্স বন্দরের বিশেষ নিরাপত্তা ব্যবস্থার মধ্যে রাখা হয়েছে। কাগজ পত্রের আনুষ্ঠানিকতা শেষ হলে ঢাকায় উদ্দেশ্যে নেওয়া হবে।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..