• শনিবার, ২৪ জুলাই ২০২১, ০২:৩৯ অপরাহ্ন

স্ত্রীকে গলা কেটে হত্যার অভিযোগ স্বামীর বিরুদ্ধে

  • আপডেট টাইম : বুধবার, ১৪ জুলাই, ২০২১
  • ২৭

বাংলারজমিন২৪.কম ডেস্কঃ

কিশোরগঞ্জের নিকলী উপজেলায় পারিবারিক বিরোধের জের ধরে জেসমিন আক্তার নামে এক গৃহবধূকে গলা কেটে হত্যার অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় স্বামী মো. জুয়েল মিয়া ও তার দুই ভাইয়ের স্ত্রীকে আটক করেছে পুলিশ। মঙ্গলবার (১৩ জুলাই) সন্ধ্যায় উপজেলার জারইতলা ইউনিয়নের কামালপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।
স্ত্রীকে গলা কেটে হত্যার অভিযোগ স্বামীর বিরুদ্ধে

পুলিশ জানায়, কয়েক বছর আগে উপজেলার উত্তর দামপাড়া সাহেবের হাটি গ্রামের মৃত শাহাবুদ্দিনের মেয়ে জেসমিন আকতারের সঙ্গে একই উপজেলার কামালপুর গ্রামের মো. জুয়েল মিয়ার সঙ্গে বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকে শ্বশুরবাড়ি থেকে আনা ঋণের টাকা পরিশোধকে কেন্দ্র করে জুয়েল ও তার আত্মীয়দের সঙ্গে জেসমিনের পারিবারিক বিরোধ হয়। জুয়েল শ্বশুরবাড়ির মুখলেছ মিয়ার কাছ থেকে ৩৯ হাজার টাকা ঋণ নেন। এ টাকা ফেরত দেওয়াকে কেন্দ্র করে জেসমিনের সঙ্গে স্বামী ও শ্বশুরবাড়ির আত্মীয়দের সম্পর্কের অবনতি হয়।

নিহত জেসমিনের মা রুশনারা জানান, বিয়ের পর থেকে প্রায়ই জেসমিনকে মারধর করত স্বামী ও শ্বশুর-শাশুড়ির বাড়ি লোকজন। মাত্র ১৫ দিন আগে একটি পুত্রসন্তানের জন্ম দেন জেসমিন। জন্মের কয়েক ঘণ্টা পরই মারা যায় নবজাতকটি। সন্তান মারা যাওয়ার পর থেকে মেয়ের ওপর অত্যাচারের মাত্রা বেড়ে যায়। পারিবারিক বিরোধকে কেন্দ্র করে মঙ্গলবার বিকেলে জেসমিনকে গলা কেটে হত্যার পর ঘরের আলমারির পেছনে মরদেহ ফেলে রেখে পালিয়ে যায় জুয়েল ও তার স্বজনরা। খবর পেয়ে পুলিশ রাতে জেসমিনের মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য কিশোরগঞ্জ ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতাল মর্গে পাঠায়।

এ ঘটনায় গতকাল বৃহস্পতিবার নিহত জেসমিনের স্বামীসহ ছয়জনকে আসামি করে একটি মামলা করেছেন জেসমিনের মা রুশনারা।
নিকলী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শামসুল আলম সিদ্দিকী জানান, এ ঘটনায় থানায় মামলা হয়েছে। পুলিশ নিহত জেসমিনের স্বামী মো. জুয়েল মিয়া, তার দুই ভাইয়ের স্ত্রী নূরজাহান ও খাদিজাকে আটক করা হয়েছে। অন্যদের আটক করতে অভিযান চলছে।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..