• বৃহস্পতিবার, ২৯ জুলাই ২০২১, ০৬:২৮ পূর্বাহ্ন

ন্যায্যমূল্য পাবেন কোরবানিদাতারা

  • আপডেট টাইম : সোমবার, ১২ জুলাই, ২০২১
  • ২১

বাংলারজমিন২৪কম ডেক্স রিপোর্টঃকোভিড ১৯ পরিস্থিতিতে এ বছর কোরবানির পশুর চামড়া ৪০ শতাংশ কম সংগ্রহ হবে বলে মনে করছে ট্যানার্স অ্যাসোসিয়েশন। অন্যদিকে, ট্যানারি মালিকদের কাছে বিপুল অঙ্কের টাকা বকেয়া থাকায় পুঁজি সংকটে কাঁচা চামড়া কেনায়ও সংকট হবে বলে মনে করছেন আড়তদাররা। তবে বাণিজ্যমন্ত্রী বলছেন, ওয়েট ব্লু চামড়া রপ্তানির অনুমতি ও ট্যানারিগুলোর ভালো প্রস্তুতি থাকায় ন্যায্যমূল্য পাবেন কোরবানিদাতারা।দুই বছর ধরে পানির দরে বিক্রি হয়েছিল কোরবানির পশুর চামড়া। দাম না পেয়ে অনেক মৌসুমি বেপারি রাস্তায় ফেলে চলে যান মূল্যবান চামড়া। এ জন্য ট্যাানরি মালিক ও আড়তদাররা একে অপরের ওপর দোষ চাপান। ট্যানারিগুলো যথাসময়ে বকেয়া ১৭৫ কোটি টাকা পরিশোধ না করলে, এ বছরও লক্ষ্যমাত্রা অনুযায়ী চামড়া কেনা সম্ভব হবে না বলে আশঙ্কা করছেন পোস্তার আড়তদাররা।

হাইড অ্যান্ড স্কিন মার্চেন্ট অ্যাসোসিয়েশনের মহাসচিব টিপু সুলতান বলেন, গ্রাম থেকে চামড়া নিয়ে এসে সেগুলো সংরক্ষণ করতে অর্থের বিকল্প নেই। এখন পর্যন্ত ১৭৫ কোটি ট্যানারি মালিকদের কাছে রয়েছে। এ টাকাগুলো হাতে পেলে রাষ্ট্রের সম্পদ বাঁচানোর জন্য সব ধরনের চেষ্টা করা হবে।

গত বছর ৯০ লাখ পিস চামড়া সংগ্রহ করা হলেও করোনা সংক্রমণের ঊর্ধ্বগতি এবং অর্থাভাবের কারণে এ বছর লক্ষ্যমাত্রা পূরণ না হওয়ার আশঙ্কা ট্যানার্স অ্যাসোসিয়েশনের।

ব্যাংকগুলো যথাসময়ে প্রয়োজনীয় ঋণ না দিলে আড়তদারদের বকেয়া পাওনা পরিশোধ কঠিন হবে বলে জানান অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি।

ট্যানার্স অ্যাসোসিয়েশন সভাপতি শাহীন আহমেদ বলেন, করোনার কারণে এ বছর কোরবানির পশুর চামড়া ৪০ শতাংশ কম সংগ্রহ হবে। এ ছাড়া ব্যাংক থেকে ঋণ পাই ঈদের দুদিন আগে, সে জন্য প্রান্তিক পর্যায়ে সঠিক সময়ে টাকা পৌঁছানো যায় না এটা একটা সমস্যা।

এদিকে বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মনশি বলেন, রপ্তানিতে ভালো অবস্থান এবং অনেক ট্যানারির নিজস্ব বর্জ্য শোধনাগার থাকায় এ বছর চামড়া কেনাবেচায় সংকট হবে না। একই সঙ্গে যথাযথভাবে চামড়ার বিপণন ও পচন রোধে মাঠে থাকবে বিভিন্ন সরকারি সংস্থা।
দেশে বছরে চামড়ার চাহিদা ২৫ কোটি বর্গফুট। যার ৬০ ভাগেরই জোগান আসে কোরবানির পশু থেকে। গত ২০২০-২১ অর্থবছরে ১১ কোটি নয় লাখ ডলারের চামড়া রপ্তানি হয়েছে। আগের বছরের চেয়ে প্রবৃদ্ধি হয়েছে ২১ শতাংশ।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..