• রবিবার, ২৫ জুলাই ২০২১, ০৮:২৯ পূর্বাহ্ন

দরকার মাস্টার প্ল্যান বাস্তবায়ন দখল-দূষণ গিলে খাচ্ছে পানি প্রবাহের উৎস

  • আপডেট টাইম : শনিবার, ১২ জুন, ২০২১
  • ৬৪

বাংলারজমিন২৪.কম ডেস্কঃ

বর্তমান বাস্তবতায় সব খাল-ড্রেন শতভাগ সচল থাকলেও নগরীর জলজট কমানো সম্ভব নয়।নগরবিদ ইকবাল হাবিব বলছেন, অপরিকল্পিত নগরায়ণে গড়িয়ে যাওয়া পানির পরিমাণ ২৫ ভাগ বেড়ে যাওয়ায় এমন পরিণতি। অথচ দখল আর দূষণ প্রতিনিয়তই গিলে খাচ্ছে পানি প্রবাহের উৎস। তাই দরকার নতুন মাস্টার প্ল্যান আর তার বাস্তবায়ন। ঢাকা সিটির দুই মেয়র বলছেন খালগুলো পুরোপুরি বুঝে পেলে আগামী মৌসুম থেকে সুফল মিলবে ঢাকাবাসীর।

বৃষ্টির দিন। প্রকৃতির সঙ্গে আনন্দে নেচে ওঠে প্রাণ। বর্ষা যেন গভীর শূন্যতার সঙ্গে বয়ে আনে আনন্দক্ষণ। তবে বৃষ্টি কি শান্তির পরশ দেয় সব জীবনে, সব সময়ে?

সিএনজিচালিত অটোরিকশা হাবিব মিয়া এক দশক হলো দাপিয়ে বেড়ান ঢাকা শহর। একটু বৃষ্টিতেই এখন বলে দিতে পারেন কোথায় যেতে মানা পানির জটে।

নগরের উত্তরে পূর্ব রাজাবাজার, মোহাম্মদপুর, কাজিপাড়া, শেওড়াপাড়া, পাইকপাড়াসহ নয়টি এলাকায় মাঝারি বৃষ্টি মানেই হাঁটুসমান পানি। আর দক্ষিণের ধানমন্ডি, ইস্কাটন, বঙ্গবাজার পুরাতন ঢাকার বেশ কিছু এলাকাসহ ৩২টি হট স্পটেও একই দশা। একই দুর্ভোগ।

জলাবদ্ধতার কারণ কী?

নব্বইয়ের দশকে রাজধানীর জলাবদ্ধতা নিরসনে করা মাস্টার প্ল্যান অনুযায়ী বৃষ্টির পানির ৪৫ থেকে ৫০ শতাংশ চলে যাবে ড্রেনে। বাকি অংশ শুষে নেবে মাটি। গত তিন দশকে ৪৭ শতাংশ সবুজ হারিয়েছে ঢাকা। হারিয়েছে কাঁচামাটি। ফলে ড্রেনে গড়ানো পানির অনুপাত বেড়েছে ৭০ শতাংশ। তাই ড্রেন, নালা, খাল সব ঠিক থাকলেও ২০ থেকে ২৫ শতাংশ পানি অতিরিক্ত হওয়ার কথা।

আবার গত তিন দশকে অবৈধ দখল, অপরিকল্পিত ভরাটে ৪০ শতাংশ খাল আর নালা হারিয়েছে ঢাকা। টিকে আছে যেগুলো সেগুলো লড়ছে নিজের অস্তিত্ব বাঁচাতেই।নগরবিদ ইকবাল হাবিব বলেন, কঠিন এবং তরল বর্জ্যকে ব্যবস্থাপনাকে না করলে খাল, জলাশয়-জলাধার উদ্ধার করা সম্ভব না। সিটি করপোরেশেনকে এটা আধুনিক পদ্ধতিগত উন্নয়ন ও ব্যবস্থাপনাগত উন্নয়ন করতে হবে।

দীর্ঘদিনের দাবির প্রেক্ষিতে অবশেষে চলতি বছরের শুরু হয়েছে সমন্বয়। বেঁচে থাকা ৬৫টি খালের মধ্যে এরই মধ্যে ২৭টি ওয়াসা থেকে বুঝে পেয়েছে সিটি করপোরেশন। প্রক্রিয়া শেষ হলে সুফল মেলার আশ্বাস দুই নগর পিতার।ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের মেয়র ফজলে নূর তাপস বলেন, ঢাকার মধ্যে যে নালা নর্দমা রয়েছে সেই জায়গা যদি আমরা সংস্কার না করি তাহলে বৃষ্টির পানিটা যাওয়ার সুয়োগ পাবে না সেই নদী পর্যন্ত। সেই কাজটা আমরা হাতে নিচ্ছি।    

ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র আতিকুল ইসলাম বলেন, এখন আমাদের কাজ হচ্ছে খালের দখল মুক্ত করা, খালের পানিপ্রবাহ ঠিক করা, খালের সীমানা প্রস্তুতকরণ আর সীমানা ঠিক করে একটা প্রজেক্ট ঠিক করা হচ্ছে।       

তবে কেবল প্রতিশ্রুতির নয়, এর বাস্তবায়ন দেখতে চায় নগরবাসী।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..