• বুধবার, ০৪ অগাস্ট ২০২১, ০৫:৫৮ অপরাহ্ন

নেত্রকোনার মদনে পুলিশের স্ত্রী আহত।

  • আপডেট টাইম : শনিবার, ৮ মে, ২০২১
  • ১২৫

ইকবাল হাসান, নেত্রকোনা জেলা প্রতিনিধিঃ

নেত্রকোনা জেলার মদন উপজেলায় ১ নং কাইটাল ইউনিয়নের পাছার বড় বাড়ির গ্রামে  গতকাল মঙ্গলবার রাত ৯ টার সময় পুলিশ কনস্টেবল সোহেল রানার স্ত্রী ফরিদা ইয়াসমিন (৩০)  মারামারির ঘটনায় আহত হয়। আহত ফরিদা ইয়াসমিন কে উদ্ধার করে স্বজনরা মদন হাসপাতালে ভর্তি করেন।

ফরিদা ইয়াসমিনের মা জরিনা বেগম বলেন, সন্ধ্যায় ইফতার করার পর শরীরে ক্লান্তি আসায় তাড়াতাড়ি ঘুমিয়ে পড়ি। রাতের আধারে আমার ঘরে কয়েকজন চুরির উদ্দেশ্যে ঢুকে। আমার ঘর থেকে ১৩ লক্ষ টাকা ও ৪ ভরি স্বর্ণ নিয়ে যায় । টের পেয়ে চুরের পিছনে ধাওয়া করে চোরকে ধরে চিনতে পারি। এদের মধ্যে ছিল কেন্দুয়া উপজেলার কিছু অংশ পাছার বড়বাড়ির ইসহাক, নুর আলম, আঙ্গুর মিয়া ও আরো কয়েকজন । তখন এদেরকে চিনতে পারায় আমার মেয়ে ফরিদা ইয়াসমিন কে মাথায় আঘাত করে পালিয়ে যায়।

এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, ফরিদা ইয়াসমিনের মা জরিনা বেগম (৬০) মৃত মফিজ আলীর ছেলে ইসহাক মিয়া র কাছে পাওনা টাকা  চাইতে গেলে  টাকা দিতে অসম্মতি প্রকাশ করায় , তাদের মধ্যে তর্কাতর্কি সৃষ্টি হয়, এক পর্যায়ে মারামারি বেঁধে যায়। এতে আহত হয় ফরিদা ইয়াসমিন । ঘটনাটি ঘটেছে ইসহাক মিয়ার বাড়ির সামনে।

অভিযুক্ত নুর আলম ও আঙ্গুর মিয়া বলেন, ইসহাকের বাড়িতে ঝগড়া হওয়ার সময় আমরা ফিরাতে যাই। চুরির ঘটনা সম্পূর্ণ মিথ্যা ও তাদের মনগড়া।  মদন থানার অফিসার ইনচার্জ ফেরদৌস আলম বলেন, এ ঘটনা কোন অভিযোগ এখনো পাইনি। হাসপাতালে পুলিশ পাঠানো হচ্ছে। তদন্ত সাপেক্ষে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..