• শনিবার, ১৯ ডিসেম্বর ২০২০, ০১:২২ অপরাহ্ন

ব্রেকিং নিউজ :
শার্শায় এতিম ও সুবিধা বঞ্চিতদের মাঝে কম্বল বিতরণ ও মানবতার খাম্বা উদ্ভোধন  নবাবগঞ্জে সরকারি ভাতা দেয়ার নাম করে প্রতারণা  ভোলাহাটে ইউনিক কেয়ার ডায়াগনিষ্টক সেন্টারের উদ্বোধন আদিবাসীদের মানবাধিকার বাস্তবায়ন ও সুরক্ষা বিষয়ক কর্মশালা দুই দেশের প্রধানমন্ত্রী চিলাহাটি-হলদিবাড়ি রেল যোগাযোগের উদ্বোধন করলেন। সুন্দরগঞ্জে কিশোরী ভাতিজীকে ধর্ষণ চেষ্টায় চাচা গ্রেফতার সুন্দরগঞ্জে মুক্তিযোদ্ধাদেরকে এমপি’র সহায়তা প্রদান আজ ১৯শে ডিসেম্বর ২০২০ইং, আজকের রাশিফল। যুগান্তকারী অধ্যায়ে পৌঁছেছে বন্ধুত্ব, অর্থনীতি আরো সংহত করার প্রত্যয় লোহাগড়ায় কৃষকলীগ নেতার নামে মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানীর অভিযোগ

কুলাউড়ার কর্মধায় সক্রিয় চাঁদাবাজ চক্র

  • আপডেট টাইম : শনিবার, ১৯ ডিসেম্বর, ২০২০

আব্দুল কুদ্দুস, কুলাউড়া প্রতিনিধিঃ 

কুলাউড়ার কর্মধায় বেপরোয় হয়ে উঠেছে একটি চাঁদাবাজ চক্র। বিভিন্ন সময় খাসিয়াদের রাস্তায় আটক করে বড় অঙ্কের চাঁদা দাবী করা হচ্ছে। এই চক্রের প্রধান কর্মধার নলডরী গ্রামের নানু মিয়ার ছেলে আনোয়ার হোসেন লিটন। নোনছড়া পুঞ্জির হেডম্যান ববরিন খাসিয়া জানান, প্রায় মাসখানেক পূর্বে গ্রামীণ ফোনের একটি নাম্বার থেকে ফোন দিয়ে তার
কাছে ২ লক্ষ টাকা চাঁদা দাবী করেন লিটন। চাঁদা দাবীর এক সপ্তাহ পর ২১ নভেম্বর লিটনের নেতৃত্বে ২০-২৫ জন লোক ববরিন খাসিয়ার মালিকানাধীন পানের জুমে প্রবেশ করে অন্তত ৫০০ পান গাছ কর্তন করে। এছাড়া আরো ২৫-৩০টি পান জুমে ঢুকে পান গাছ কর্তন করা হয়। এ ঘটনায় ববরিন খাসিয়া বাদী হয়ে আনোয়ার হোসেন লিটনকে প্রধান আসামী করে এবং
তার সহযোগী ১৪ জনের বিরুদ্ধে কুলাউড়া থানায় একটি মামলা (নং-১৭) দায়ের করেন। মামলা দায়েরের পর ওই চক্রটি এখন আরো বেপরোয়া হয়ে উঠেছে। আর ২ লক্ষ টাকা চাঁদা না দেওয়ায় পুঞ্জির হেডম্যান ববরিন খাসিয়াকে প্রাণে মারার হুমকি দেওয়া হচ্ছে। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, নোনছড়া পুঞ্জিতে প্রায় ১৫০ পরিবারের বসবাস। খাসিয়ারা চাঁদাবাজ চক্রের ভয়ে পুঞ্জি থেকে বের হতে পারছেন না।

গত ১৩ ডিসেম্বর ওই পুঞ্জির বাসিন্দা মৃত বানিয়া খাসিয়ার ছেলে হাম খাসিয়া (৬০) অসুস্থ অবস্থায় চিকিৎসা নিতে রবিরবাজার ডাক্তারের কাছে যাচ্ছিলেন। আছকরাবাদ চা বাগানস্থ পুঁটিছড়া-নোনছড়া রাস্তার পয়েন্টে লিটন বাহিনীর সদস্য নলডরী গ্রামের (ইয়াউননগর ফাঁড়ি বাগান) মৃত মানিক মিয়ার ছেলে জাবেদ মিয়া তাকে আটক করে। একপর্যায়ে কোন পুঞ্জির লোক জিজ্ঞেস করে তার নিকট ১ লক্ষ টাকা চাঁদা দাবী করে। অসুস্থ হাম খাসিয়া এত টাকা চাঁদা না দেওয়ায় আর ডাক্তার দেখানো সম্ভব
হয়নি। উল্টো বাড়ী ফিরতে হয় তাকে। এসময় জাবেদ প্রয়োজনে পুঞ্জির হেডম্যানের কাছে তার (জাবেদ) নাম ও পরিচয় দেওয়ার কথা বলেও হাম খাসিয়াকে শাসিয়ে দেয়।

এর আগে একই পুঞ্জির মৃত এস ওয়েলের পুত্র লোওয়া খাসিয়াকেও আছকরাবাদ চা বাগানে রাস্তায় আটক করে লিটন বাহিনীর সদস্য জাবেদ। লোওয়া খাসিয়া পুঞ্জি থেকে বাজারে যাচ্ছিলেন। জাবেদ দেহ তল্লাসী করার পর কোন কিছু না পেয়ে তার কাছেও ১ লক্ষ টাকা চাঁদা দাবী করে। চাঁদা না দিলে পুঞ্জি থেকে নামতে দেওয়া হবেনা আর নামলেও জীবিত অবস্থায় ফিরতে দিবেনা বলে হুমকি দেয় তাকে। লোওয়া খাসিয়া ভয়ে এখন পর্যন্ত পুঞ্জি থেকে বের হননি।

স্থানীয়রা জানান, লিটন ও জাবেদ ছাড়াও এই চক্রে রয়েছেন পূর্বফটিগুলী গ্রামের সুরুজ আলীর ছেলে রেণু, একই গ্রামের মৃত ছিদ্দেক মিয়ার ছেলে এলাইছ ও পশ্চিম ফটিগুলী গ্রামের মৃত মতিন মিয়ার ছেলে সেলিম। নোনছড়া পানজুমের পাহারাদার শাহিন মিয়া জানান, গত ২৫ নভেম্বর পুঞ্জিতে যাওয়ার সময় ফানাই নদীর পারে আনোয়ার হোসেন লিটন ও তার সঙ্গীরা তাকে আটক
করে। পুঞ্জিতে যাওয়া-আসা করার দায়ে মারধর করে এবং তাকে প্রাণে মারার হুমকি দেয়। শাহিন আরো জানান, বিভিন্ন ভয়ভীতি দেখিয়ে ববরিন খাসিয়ার কাছ থেকে দুই লাখ টাকা চাঁদা এনে দিতে এই লিটন তাকে বলে। কিন্তু চাঁদা এনে দিতে না পারার কথা বলায় তাকে মারধর করে। এ ঘটনায় ২৬ নভেম্বর আনোয়ার হোসেন লিটনকে প্রধান আসামী করে এবং আরো ১৩ জনের নাম উল্লেখ করে মৌলভীবাজার আদালতে মামলা দায়ের করেন শাহিন।

স্থানীয় আদিবাসীরা জানান, ২৫ ডিসেম্বর তাদের প্রধান ধর্মীয় উৎসব বড়দিন। কিন্তু এই চাঁদাবাজ চক্রের ভয়ে তারা পুঞ্জি থেকে বের হয়ে বাইরে যেতে পারছেন না। ফলে তাদের ধর্মীয় উৎসব পালনে উৎসাহে বিঘ্ন ঘটছে।পুঞ্জির মন্ত্রী ববরিন খাসিয়া বলেন, পান চাষ করে আমরা জীবিকা নির্বাহ করি। নলডরী গ্রামের বাসিন্দা আনোয়ার হোসেন লিটন আমার কাছে দুই লক্ষ টাকা চাঁদা দাবী করে। এই চাঁদা না দেওয়ায় লিটনের নেতৃত্বে জাবেদ, রেণু মিয়া ও এলাইছসহ অন্যান্যরা জুমে প্রবেশ করে পান গাছ কেটে
কয়েক লক্ষ টাকা ক্ষতিসাধন করে। এমনকি খাসিয়াদের পান জুম বিনষ্ট করতে মরিয়া হয়ে উঠেছে এই চক্র। তিনি জানান, ২৫ ডিসেম্বর বড়দিন উৎসব পালন নিয়েও পুঞ্জির সাধারণ লোকজন আতঙ্কে রয়েছেন।

তিনি ন্যায় বিচারসহ বড়দিন উদযাপনে প্রশাসনের সহযোগিতা কামনা করেন। আনোয়ার হোসেন লিটন জানান, আমাদের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করা হচ্ছে। কর্মধা ইউপির চেয়ারম্যান এমএ রহমান আতিক জানান, ১৩ ডিসেম্বর অসুস্থ হাম খাসিয়াকে আটক করে চাঁদা দাবী করার ঘটনাটি তিনি শুনেছেন। তিনি আরো খোঁজ নিয়ে বিষয়টি দেখছেন। কুলাউড়া থানার ওসি বিনয় ভূষন রায় জানান, মামলার বিষয়টি আমি জানি। কিন্তু চাঁদাবাজীর বিষয়টি খোঁজ নিয়ে দেখছি। সত্যতা পেলে প্রয়োজনীয় আইনী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Facebook Comments

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..