• শনিবার, ১০ অক্টোবর ২০২০, ০৫:৫১ অপরাহ্ন

ছাত্রলীগ ও যুবলীগের দু’পক্ষের সংঘর্ষে ২১ নেতাকর্মী আহত,মোটরসাইকেল ভাঙচুর

  • আপডেট টাইম : শনিবার, ১০ অক্টোবর, ২০২০

বাংলারজমিন২৪কম ডেক্স-

পিরোজপুরের নাজিরপুরে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে ছাত্রলীগ ও যুবলীগের দু’পক্ষের সংঘর্ষে ২১ নেতাকর্মী আহত হয়েছেন। এ সময় সংঘর্ষে ১৪টি মোটরসাইকেল ভাঙচুর করা হয়।

শনিবার (১০ অক্টোবর) বেলা সাড়ে ১১টায় উপজেলার হাসপাতাল ব্রিজের ঢালের বুইচাকাঠী টেম্পু স্ট্যান্ড সংলগ্ন এলাকায় এ ঘটনাটি ঘটেছে।

এ হামলায় তারেক জামিল রানা তাজ (১৯), রাজিব শেখ (১৮), মানবিন্দু মিস্ত্রী (১৮), রানা বিশ্বাস (১৮), মধু খান (৩২), বেল্লাল হাওলাদার (১৯), রানা হাওলাদার (২২), হৃদয় খান (১৬), হৃদয় মোল্লা (১৬), মিলন (৩৪), কাওছার মৃধা (২২), বাপ্পি খান (৩৫), রায়হান সর্দার (১৮), মিরাজ মৃধা (১৭), প্রিন্স হাওলাদার (১৯), নুরুল আমীন (২৫), নয়ন ফরাজী (২০)  আহত হয়েছেন।

এছাড়াও জোবায়ের হিমেল (২৫), শ্রীরামকাঠী ইউনিয়ন যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক নুরে আলম প্রিয়াংকা (২৫), স্মরন শিকদার (১৮), কলারদোয়ানিয়া ইউনিয়ন ছাত্রলীগ সভাপতি মো. রাকিব (২০) আহত হয়েছেন।

আহত নুরে আলম প্রিয়াংকা জানান, আমি শানিবার দুপুর ১২টার দিকে শ্রীরামকাঠী বন্দরের সোনালী ব্যাংকের সামনের একটি চায়ের দোকানে চা খাওয়ার সময় শ্রীরামাকাঠী  ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি মো. মিজানুর রহমান মিঠুর নেতৃত্বে ৫/৬ জন যুবলীগ কর্মী আমার উপর হামলা করে আহত করে।

এ হামলায় গুরুতর আহত স্মরন শিকদার (১৮) ও তারেক জামিল তাজকে (১৯) উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। বাকিরা শ্রীরামাকাঠী বন্দরের পল্লীচিকিৎসকের মাধ্যমে প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়ে ফিরে গেছেন।

প্রত্যক্ষদর্শী উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মো. মোস্তাফিজুর রহমান রঞ্জু জানান, সকালে বাসা থেকে বের হয়ে উপজেলার দিকে যাওয়ার সময় ওই মারামারির খবর পেয়ে ঘটনাস্থালে গিয়ে দেখি উপজেলা ছাত্রলীগের আহ্বায়ক মো. তরিকুল ইসলাম চৌধুরী তাপসের উপস্থিতিতে ৪/৫ জন কর্মীর হাতে থাকা লোহার রড় দিয়ে মোটরসাইকেল ভাঙচুর করছে। পরে তারা উপজেলা ছাত্রলীগের আহ্বায়কসহ সেখানে থাকা হামলাকারীরা ব্রিজের নীচে নেমে যায়।

উপজেলা যুবলীগ সহ-সভাপতি মো. ফারুক হাওলাদার জানান, সকাল ১০টার দিকে আমরা নাজিরপুর থেকে শ্রীরামকাঠী যাওয়ার পথে উপজেলা ছাত্রলীগের আহ্বায়ক তরিকুল ইসলাম চৌধুরী তাপসের নেতৃত্বে ৩০/৪০ জন আমাদের লোকজনের ওপর হামলা করে। এ সময় হামলা করে আমাদের ২০/২৫ জনকে আহত করে এবং কাওছার শেখ, রিপন, রাজিব, হৃদয় খান, হৃদয় মোল্লা, মিলন, নয়ন শেখ, শরিফুল, পার্থ ওঝা, হামিম ও কাওছার মোল্লা এদের ১১টি ও ৩ পথচারীসহ ১৪টি মোটর সাইকেল ভাঙচুর করে ।

উপজেলা ছাত্রলীগ আহ্বায়ক তরিকুল ইসলাম চৌধুরী তাপস ওই হামলার সাথে নিজেকে জড়িত থাকার অভিযোগ অস্বীকার করেছেন। তিনি জানান, আমি ঘটনাস্থলে ছিলাম না, তবে  ঘটনাটি শুনেছি। শ্রীরামকাঠী থেকে নাজিরপুরে আসার সময় সকাল ১০টার দিকে ওই ইউনিয়ন যুবলীগ সভাপতি মিঠুর নেতৃত্বে ছাত্রলীগ নেতা স্মরন শিকদার ও কলারদোয়ানিয়া ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি মো. রাকিব হোসেনকে মারধর করা হয়েছে।

যুবলীগ নেতা মিজানুর রহমান মিঠু তার বিরুদ্ধে আনিত হামলার অভিযোগ অস্বীকার করে জানান, এর আগে গত বৃহস্পতিবার (০৮ অক্টোবর) ছাত্রলীগের কিছু কর্মীরা দক্ষিণ শ্রীরামাকাঠীর একটি জমি দখল করিয়ে দিতে সেখানে যায়। এ নিয়ে স্থানীয়রা তাদের মারধর করেন। এ ঘটনায় আমাদের দায়ী করে উপজেলা ছাত্রলীগ আহ্বায়ক তাপস চৌধুরীর নেতৃত্বে এ হামলা হয়।

নাজিরপুর থানার অফিসার ইনচার্জ মো. মুনিরুল ইসলাম মুনির জানান, এ ঘটনার পর পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনা হয়েছে। এখানো কোনো পক্ষ থেকে অভিযোগ পাওয়া যায়নি।

Facebook Comments

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..