• সোমবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৮:১১ পূর্বাহ্ন

শিমুলিয়ায় পুরোপুরি বন্ধ ফেরি বন্ধ থাকায় দুর্ভোগে পড়েছেন হাজার হাজার মানুষ।

  • আপডেট টাইম : মঙ্গলবার, ১৫ সেপ্টেম্বর, ২০২০
  • ১৫

বাংলারজমিন২৪কম ডেক্স-

শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়ি নৌরুটে নাব্য সঙ্কটে ফেরি চলাচল দুই দিন ধরে পুরোপুরি বন্ধ থাকায় দুর্ভোগে পড়েছেন হাজার হাজার মানুষ।

যাত্রীরা ঘাটে গাড়ি রেখে ঝুঁকি নিয়ে লঞ্চ-স্পিডবোটে করে পদ্মা পার হচ্ছেন। রাতে সব নৌযান বন্ধ থাকায় বিড়ম্বনার যেন নেই শেষ। আটকাপড়া পণ্যবাহী ট্রাক চালকরা ঘাটে এসে পড়েছেন বিপাকে। তাদের পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া ঘাট হয়ে যাওয়ার কথা বলা হয়েছে।

লৌহজং টার্নিং চ্যানেল এখনও অচল পড়ে আছে। সেখানে নাব্য সঙ্কটে আটকা পড়েছে ড্রেজার।

এদিকে মঙ্গলবার (১৫ সেপ্টেম্বর) সকালে নৌপরিবহন সচিব মোহাম্মদ মেজবাহ্ উদ্দিন চৌধুরীসহ বিআইডব্লিউটিএর চেয়ারম্যান ও বিআইডব্লিউটিসির চেয়ারম্যানসহ সংশ্লিষ্ট দায়িত্বশীলরা নাব্য পরিস্থিতি সরেজমিন ঘুরে দেখেন।

তবে কবে নাগাদ ফেরি সচল হবে তা নিশ্চিত করতে পারেনি কর্তৃপক্ষ।

৯ দিন বন্ধ থাকার পর সীমিতভাবে চালুর দু’দিনের মাথায় রোববার দুপুরে ফেরি আবারও বন্ধ হয়ে যায়। এতে ক্ষোভ প্রকাশ করেছে ঘাট ব্যবহারকারীরা।

এদিকে পদ্মার স্রোত, নাব্য সঙ্কট ও ঘাট ভাঙনে শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়ী নৌরুটে ফেরি চলাচল বন্ধ থাকায় যানবাহনের বাড়তি চাপ পড়েছে দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌরুটের উভয় ঘাটে।

এ নৌরুটে ফেরি চলাচল নাব্য সঙ্কটে বন্ধ থাকায় পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া নৌরুটে ৫ নোটিক্যাল নৌপথে পণ্যবাহী ট্রাক পার হতে সময় লাগছে তিন থেকে চার দিন। এতে ভোগান্তিতে রয়েছে পণ্যবাহী ট্রাকের শ্রমিক ও পণ্যবাহী ব্যবসায়ীরা।

পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া ঘাট কর্তৃপক্ষ জানায়, শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়িতে ফেরি চলাচল বন্ধ থাকায় পাটুরিয়া-দৌলতদিয়ায় যানজটের সৃষ্টি হয়েছে। ফেরি পার হতে দীর্ঘ সময় লাগায় কাঁচা সবজি নিয়ে পড়েছেন বিপাকে ব্যবসায়ীরা। ছোট গাড়ি ও অ্যাম্বুলেন্সকে বেশি অগ্রাধিকার দেয়া হচ্ছে পারাপারে।

মঙ্গলবার  (১৫ সেপ্টেম্বর) সকাল ৯টার দিকে দৌলতদিয়া ঘাট বিআইডব্লিউটিসি কর্তৃপক্ষ জানায়, সময় বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে যানবাহনের চাপ বাড়বে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

এদিকে আবার শিমুলিয়া ঘাটে দীর্ঘ অপেক্ষায় থাকার পর পার হতে না পেরে পাটুরিয়া ঘাটে এসেছে অনেক পণ্যবাহী ট্রাক। এতে বেড়েছে যানজট। এ ঘাটে দীর্ঘ থেকে দীর্ঘ হচ্ছে যানবাহনের সারি।

পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া নৌরুটে ১৯টি ফেরির মধ্যে ১টি স্রোতের বিপরীতে চলতে গিয়ে বিকল হওয়ায় পাটুরিয়া মধুমতি ভাসমান কারখানায় মেরামতে রয়েছে। চলাচল করছে ১৮টি ফেরি। এছাড়াও পাটুরিয়া ঘাটের ৪নং ঘাটের ৩নং মুখ নাব্য সঙ্কটের কারণে বন্ধ থাকায় ঘাটে দেখা দিচ্ছে ঘাট সঙ্কট। তবে নাব্য নিরসনে ড্রেজিং করছে বিআইডব্লিউটিএ।

যাত্রীরা জানান, দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌরুটে সারাবছর কোনো না কোনো ভোগান্তি থাকে। গরমে নাব্য সঙ্কট ও বর্ষায় স্রোত। অথচ প্রতিবছর ড্রেজিং করা হয়। কিন্তু বছর শেষে যা তাই। শীতে কুয়াশায় ঘণ্টার পর ঘণ্টা বন্ধ থাকে ফেরি। কিন্তু এসব ভোগান্তি লাঘবে যথাযথ কোনো পদক্ষেপ নেই কর্তৃপক্ষের।

Facebook Comments

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..