• রবিবার, ০৯ মে ২০২১, ০৫:০৩ অপরাহ্ন

প্রাথমিক শিক্ষায় শিখন শেখানোর ক্ষেত্রে উপকরন ব্যবহারের গুরুত্ব

  • আপডেট টাইম : বুধবার, ২৮ আগস্ট, ২০১৯
  • ২৪৫

 

পাঠদানকে সহজ, আকর্ষনীয় ও ফলপ্রসু করতে যেসব দ্রব্য ও জিনিসপত্র ব্যবহার করা হয় তাই উপকরন। উপকরনের সাহায্যে পাঠদান করলে শিক্ষকের প্রতি শিক্ষার্থীরা তুলনামুলক বেশি মনোযোগী হবে এবংশিক্ষক যা বলবেন তা অতি দ্রুত শিক্ষার্থীরা গ্রহন করতে পারবে। শিশুদের জানার আগ্রহ ব্যপক। কোন জিনিস শুনেই সে তৃপ্ত নয়, অন্তর্নিহিত বিষয় জানার জন্য রয়েছে কৌতুহল ।

প্রকৃত শিক্ষা হয় শুনে, দেখে এবং স্পর্শের মাধ্যমে। নতুন নতুন ধারনা লাভের সাথে “উপকরন” বিষয়টি দারুনভাবে জড়িত। শিশুদের প্রকৃত শিক্ষায় শিক্ষিত করতে উপকরন, শিক্ষাকেন্দ্রের একটি অবিচ্ছেদ্য অংশ হিসেবে কাজ করে ।

শিক্ষকের অন্যতম প্রধান দায়িত্ব হলো শিশুদের কাছে পাঠকে আকর্ষনীয় ওসহজবোধ্য করে তোলা । উপকরন ব্যবহারের মাধ্যমে পাঠকে আকর্ষনীয়ভাবে উপস্থাপন করা যায় ।শিক্ষক তার মেধা ও মনন দিয়ে শিশুকে নিরস বিষয়কেও সহজবোধ্যভাবে ধরিয়ে দিতে পারেন ।আর সেখানেই রয়েছে শিক্ষকের স্বার্থকতা । গতানুগতিক কথা কারোই ভালো লাগেনা । শিশু মন বৈচিত্রময় ও অনুসন্ধিৎসু । মানুষ গড়ার কারিগর তার দক্ষতা দিয়ে ছাত্রের জানা অজানার পরিধি পরিমাপ করতে পারেন ।তাইতো কোন কোন শিক্ষক থাকেন ছাত্রের কাছে দেবতার সমতুল্য ।

অত্যন্ত দুর্বোধ্য বিষয়কে উপকরন ব্যবহারের মাধ্যমে শিক্ষক সহজ ও সাবলীলভাবে শ্রেনীকক্ষে তুলে ধরতে পারেন। আমরা যা কিছু শুনি তাড়াতাড়ি ভুলে যাই,যা দেখি, তা কিছুক্ষন স্থায়ী থাকে,আর যা নিজস্ব হাত পা দিয়ে ধরে ,ছুঁয়ে নাড়াচাড়া করি তা দীর্ঘস্থায়ী হয় । প্রাথমিক শিক্ষা এই পর্যায়ে আসার পিছনে আমি মনে করি শ্রেনীকক্ষে উপকরন ব্যবহার অন্যরকম ভূমিকা পালন করছে। শিক্ষকগনকে উপকরন ব্যবহারে হতে হবে আন্তরিক। শিশু মনকে পড়াশুনার প্রতি আকৃষ্ট করতে হলে প্রয়োজন বৈচিত্রময়, বাস্তবভিত্তিক ও আকর্ষনীয় পাঠ্যবিষয়। আজকাল শিশুর অনূভুতিকে গভীরভাবে মূল্যায়ন করা হচ্ছে। রাষ্ট্র শিশু শিক্ষার ক্ষেত্রে সর্বোচ্চ নজর দিচ্ছে। ছাত্রের মেধা ও মনন বিকাশের উপর নির্ভর করছে শিক্ষকের মূল্যায়ন । শিক্ষাক্ষেত্রে উপকরনের ব্যবহার সম্পর্কে রয়েছে সকলের ইতিবাচক ধারনা ।

পাঠদানে নতুন ধারনা সৃষ্টির অবলম্বন হলো উপকরন ব্যবহার। আর এর সফলতা নির্ভর করছে শিক্ষকের দক্ষতা ও আন্তরিকতার উপর। শিক্ষাকে আরো যুগোযোগী ও গতিশীল করার ক্ষেত্রে উপকরন ব্যবহারের বিকল্প নাই। সেই উপলব্ধি সমাজ ও রাষ্ট্রের মধ্যে পরিলক্ষিত হচ্ছে । সংশ্লিষ্ট উপকরন ও তার যথাযথ ব্যবহারের মাধ্যমে পাঠদান আকর্ষনীয় হতে পারে।

 

 

 

 

 

রূমা আফরোজ তুলি
সহকারী উপজেলা শিক্ষা অফিসার
বালিয়াকান্দি, রাজবাড়ী

 

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..