• মঙ্গলবার, ২২ জুন ২০২১, ১১:২০ অপরাহ্ন

খুন-গুম ক্রসফায়ারের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানোর আহ্বান

  • আপডেট টাইম : মঙ্গলবার, ২৭ আগস্ট, ২০১৯
  • ১৫২
 ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধিঃ পার্বত্য চট্টগ্রামের বন্দুকযুদ্ধের নাটক সাজিয়ে সেনা কর্তৃক নির্বিচারে হত্যার ঘটনায় প্রতিবাদে বিক্ষোভ করেছে বৃহত্তম পার্বত্য চট্টগ্রামের কয়েকটি পাহাড়ি ছাত্র সংগঠন। এসময় তারা পার্বত্য চট্টগ্রামসহ সারাদেশে খুন গুম ক্রসফায়ারের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানোর আহ্বান জানিয়েছেন ।
আজ মঙ্গলবার বিকালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে রাজু ভাস্কর্য এ  বিক্ষোভ মিছিল করে তারা। এসময় তারা পাহাড়ে সেনা শাসনের বিরুদ্ধে বিভিন্ন স্লোগান এবং প্ল্যাকার্ড প্রদর্শন করে।
বিক্ষোভ পরবর্তী সমাবেশে শিক্ষার্থীরা কয়েকটি দাবি জানিয়েছেন। তাদের দাবিগুলোর মধ্যে রয়েছে- পাহাড়ে গত কয়েকদিন ধরে যেসব হত্যাকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে তার বিচার, নীরব গণহত্যা বন্ধ, যারা পাহাড়ীদের হত্যা করেছে তাদের বিচার করা এবং সেখানে অবৈধভাবে যেসব সেনাবাহিনী মোতায়েন করা হয়েছে তা প্রত্যাহার করা।
শিক্ষার্থীদের অভিযোগ, সরকার পাহাড়ীদের বিভিন্ন উন্নয়নের নামে একপ্রকার বৈষম্য সৃষ্টি করেছে। সেখানে সরকার সেনাবাহিনী দিয়ে জাতিগত নিপীড়ন চালিয়ে যাচ্ছে। সংবিধানের সংখ্যালঘুদের অধিকার দেওয়া হলেও সেখানে সংবিধান লঙ্ঘন করে সেনাবাহিনী মোতায়েন করা হয়েছে।
পাহাড়ি ছাত্র পরিষদের কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক সুনয়ন চাকমা বলেন, পার্বত্য চট্টগ্রামের সমস্যা একটি রাজনৈতিক সমস্যা। এটা কোন সামরিক সমস্যা নয়। সেখানে সেনাবাহিনী রাজনৈতিক লোকদের দিয়ে খুন গুম চালানো হয়। বাংলাদেশ সরকার যদি খুন গুমের মাধ্যমে পাহাড়ের সমস্যার সমাধান করতে চায় তাহলে আমরা বলব সরকার নিতান্তই ভুল করছে। পার্বত্য চট্টগ্রামের রাজনৈতিক সমস্যাকে যারা পাশ কাটিয়ে বন্দুকযুদ্ধের নামে নিরীহ নিরপরাধ লোকদের  খুন করছে সে জবাব তাদের একদিন দিতে হবে।
তিনি আরো বলেন, আমরা পার্বত্য চট্টগ্রামের জনগণ দীর্ঘ সময় ধরে শোষণ বঞ্চনার শিকার হয়ে আজকের এ পর্যায়ে আমরা আছি। আজকে পার্বত্য চট্টগ্রামে যখন  আন্দোলন হচ্ছে জাতিগত নিপীড়নের বিরুদ্ধে যখনই আন্দোলনে পার্বত্য চট্টগ্রামের মানুষের উপর চলে চরম নির্যাতন নিপীড়ন। আমরা সরকারকে হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করে বলতে চাই পার্বত্য চট্টগ্রামের সমস্যা কোন সামরিক সমস্যা নয়।
সরকারকে উদ্দেশ্য করে তিনি বলেন, খুন গুম করে পার্বত্য চট্টগ্রামের সমস্যার সমাধান করা যাবে না। আমরা সরকারকে বলতে চাই আপনারা যদি পার্বত্য চট্টগ্রামের সমস্যার সমাধান করতে চান তাহলে আলোচনায় আসুন, আমাদের বক্তব্য শুনুন আপনাদের বক্তব্য আমাদের শোনান তাহলেই সমস্যার সমাধান হবে।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..