• শনিবার, ০৮ মে ২০২১, ০৪:০৪ পূর্বাহ্ন

তাহিরপুরে ৫ মাসের শিশুর বিরুদ্ধে মানবতা বিরোধী অপরাধে মামলা

  • আপডেট টাইম : বৃহস্পতিবার, ২২ আগস্ট, ২০১৯
  • ১৪৭
জাহাঙ্গীর আলম ভূঁইয়া/বাংলারজমিন২৪
সুনামগঞ্জ প্রতিনিধিঃ সুনামগঞ্জের তাহিরপুর উপজেলায় ৫ মাসের শিশুর বিরুদ্ধে মানবতা বিরোধী অপরাধে মামলা দায়ের। আর এই ৫ মাসের শিশু কিভাবে যুদ্ধাপরাধে জড়িত থাকে তা নিয়ে উপজেলার সর্বত্রই চলছে আলোচনা-সমালোচনা একই সাথে নানান মুখরোচক প্রশ্নের জন্ম দিয়েছে।
জানা যায়,সাংবাদিক আমিনুল ইসলাম ছাত্র জীবন থেকেই তিনি আওয়ামীলীগ করে আসছেন। তাহিরপুর উপজেলা ছাত্রলীগের দুই বারের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ছিলেন তিনি (১৯৮৮-১৯৯০,১৯৯০-২০১)। ২০০৩ সালে গঠিত তাহিরপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ছিলেন তিনি। ২০১৪ সালের তাহিরপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের কমিটিতেও তিনি যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হয়ে অদ্যাবধি দায়িত্ব পালন করছেন। তাহার জন্ম সনদ ও এএসসি পরীক্ষার সনদ অনুযায়ী তার জন্ম তারিখ পহেলা আগস্ট ১৯৭১ সাল। ১৯৭১ সালে যখন পাকিস্তানি হানাদারের বিরুদ্ধে যখন যুদ্ধ শুরু হয় তখন তার বয়স ছিল ৫ মাস।
তাহিরপুর উপজেলার প্রেসক্লাব সভাপতি,সমকাল ও সুনামগঞ্জের খবর প্রতিনিধি আমিনুল ইসলাম বলেন,১৯৭১সালে যুদ্ধ যখন শুরু হয় তখন আমার বয়স মাত্র ৫ মাস। তিনি আরো বলেন,আমার পরিবার ও আমার বিরুদ্ধে যেসব অভিযোগ আনা হয়েছে তা পুরোপুরি বানোয়াট,মিথ্যা একই সাথে মনগড়া।
সামনে আওয়ামীলীগের কাউন্সিলকে কেন্দ্র করে আমার প্রতিপক্ষ রাজনৈতিক ক্যারিয়ার বিনষ্ট করতে মিথ্যা তথ্য দিয়ে একজন বীর মুক্তিযুদ্ধাকে ভুল বুঝিয়ে আমার বিরুদ্ধে এসব অভিযোগ করানো হয়েছে ।
এ বিষয়ে মামলার বাদী বীর মুক্তিযোদ্ধা সুজাফর মিয়া জানান, সাংবাদিক আমিনুল ইসলাম নামে কোন ব্যক্তির সঙ্গে আমার পরিচয় নাই। আমি কারো বিরুদ্ধে যুদ্ধাপরাধ অভিযোগে মামলা করেনি।
প্রসঙ্গত: গত মঙ্গলবার(২০,০৮,১৯)একাত্তরে মানবতা বিরোধী অপরাধের অভিযোগে সুনামগঞ্জের তাহিরপুরের উপজেলার ভাটি তাহিরপুর গ্রামের জাতীয় দৈনিক সমকালের তাহিরপুর প্রতিনিধি ও সুনামগঞ্জের খবর এর স্টাফ রিপোর্টার আমিনুল ইসলামের বিরুদ্ধে তাহিরপুর আমল গ্রহণকারী বিচারক হাকিম আদালতে একটি মামলা করেন উপজেলার শ্রীপুর উত্তর ইউনিয়নের দুধের আউটা গ্রামের বীর মুক্তিযোদ্ধা সুজাফর আলী। আদালত মামলাটি গ্রহণ করে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালে পাঠানোর আদেশ দিয়েছেন।
অভিযোগে উল্লেখ করা হয়েছে,আমিনুল ইসলাম চিহ্নিত খুনি, লুটেরা ও মুক্তি যুদ্ধবিরোধী পরিবারের সন্তান। মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে তাদের পরিবার এলাকায় লুটপাট, হত্যা, ধর্ষণসহ মানবতা বিরোধী অপরাধের সঙ্গে জড়িত ছিল। অভিযুক্ত আসামি আমিনুল ইসলাম শান্তি কমিটির সক্রিয় সদস্য হিসেবে সোর্সের দায়িত্ব পালন করেছেন।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..